দিন কয়েক আগেই বিজেপি সাংসদ পরবেশ ভার্মা দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে সরাসরি 'জঙ্গি' আখ্যা দিয়েছিলেন। সেই বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে এই বিজেপি নেতাকে নির্বাচন কমিশন কারণ দর্শানোর নোটিশও পাঠিয়েছে। সোমবার (৩ ফেব্রুয়ারি) কিন্তু, পরবেশ-এর দাবিকে সমর্থন করলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভাড়েকর। মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রীর দাবি, তাঁদের কাছে এই বিষয়ে 'প্রচুর প্রমাণ রয়েছে'।

কী প্রমাণ দিলেন তিনি? দিল্লির বিজেপি প্রধান মনোজ তিওয়ারি এবং জুনিয়র অর্থমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরকে নিয়ে এদিন এক সাংবাদিক সম্মেলন করে জাভড়েকর বলেন, কেজরিওয়াল বলেছিলেন তিনি নৈরাজ্যবাদী। তাঁর মতে একজন নৈরাজ্যবাদী ও সন্ত্রাসবাদীর মধ্যে খুব একটা পার্থক্য নেই। এছাড়া পঞ্জাব বিধানসভা নির্বাচনের সময় কেজরিওয়ালের খালিস্তানি সেনাপতি গুরিন্দর সিং-এর মোগা-র বাড়িতে রাত কাটাবার বিষয়টিও তুলে ধরেন। তাঁর দাবি জঙ্গিদের বাড়ি জেনেও কেজরিওয়াল সেখানেই থাকেন। জাভড়েকরের প্রশ্ন, এর থেকে বেশি আর কি প্রমাণ লাগবে?

স্বাভাবিকভাবেই একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রাজধানী ও তার সংলগ্ন এলাকার মুখ্যমন্ত্রীকে জঙ্গি বলায় স্বাভাবিকভাবেই বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়েছে। তীব্র প্রতিক্রিয়া এসেছে আপ দলের পক্ষ থেকে।  জাভড়েকর-কে তুলোদোনা করে আপ নেতা তথা সাংসদ সঞ্জয় সিং প্রশ্ন করেন, কেন্দ্রীয় সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের উপস্থিতিতে দেশের রাজধানীতে বসে কোনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর কীভাবে এই জাতীয় ভাষা ব্যবহার করতে পারেন? অরবিন্দ কেজরিওয়াল সন্ত্রাসবাদী হলে তাঁকে অবিলম্বে গ্রেফতার করার জন্য বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ করেছেন এই আম আদমি পার্টি নেতা।

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারিতে দিল্লির বিধানসভা নির্বাচন। প্রচারের শেষ পর্বে এসে বিজেপি-আপ বৈরিতা একেবারে চরমে উঠেছে। জাভাড়েকরের আগে উত্তরপ্রদেশের মুখ্য়মন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ, কেন্দ্রীয় অর্থদপ্তরের প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর, সাংসদ মনোজ তিওয়ারি, পরবেশ ভার্মা একের পর এক উসকানিমূলক মন্তব্য করে বিতর্ক সৃষ্টি করেছেন। এমনকী তাদের দলে নাম লিখিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-ও।