চলতি বছর পর্যটকদের কাছে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়ে অটল টানেল। ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে দীর্ঘ প্রতিক্ষিত এই টানেলের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তারপরই এটি যাত্রীদের জন্য খুলে দেওয়া হয়। তারপর থেকেই এই টানেল ঘিরে আকর্ষণ বাড়তে থাকে পর্যটকদের। রবিবার একদিনে ৫হাজার ৪৫০টি গাড়ি এই টালেন দিয়ে গেছে। যা একটি রেকর্ড বলেও দাবি করেছে সংশ্লিষ্ট সংস্থাটি। 
 
স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে মানালি থেকে ২হাজার ৮০০টি গাড়ি গেছে। আর ২ হাজার ৬৫০ গাড়ি গেছে লাহুল স্পিতির দিক থেকে। সোমবারও প্রায় ৫ হাজার হাজার চলাচলের রিপোর্ট নথিভুক্ত হয়েছে। আগামী দিনে এই টানেল দিয়ে গাড়ি চলাচলের পরিমাণ আরও বাড়বে বলেও আশা করছে স্থানীয় প্রশাসন। আর সেইমত নিরাপত্তার ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হয়েছে। অন্যান্য বছরগুলিতে শীতকালে মানালির সঙ্গে লাহুল স্পিতি উপত্যকার যোগাযোগ প্রায় ছিন্ন থাকে। প্রবল তুষারপাতের কারণে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। চলতি বছর পুরনো দিনের সেই স্মৃতি ভেঙে অটল টানেল যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে দুই উপত্যতার। 

কুলুর পুলিশ সুপার গৌরব সিংহ বলেছেন গাড়ির সংখ্যা আচমকা বেড়ে যাওয়ায় তাঁরা বেশ কিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন। বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা ও নজরদারী। তিনি বলেন, বেইলি ব্রিজের গতি ও ক্রসিং-এর দিকে নজর রাখা হচ্ছে। সোলাং নালা পেরিয়ে সুরঙ্গের দিকে যাওয়া সমস্ত যানবাহন বাধ্যতামূলকভাবে অটল টালেন রোহতাং পাসের দক্ষিণ পোর্টালের দিকে দিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সুবিধের জন্য ইউটার্নের ব্যবস্থা করা হয়েছে। দুর্ঘটনা এড়াতে ও গাড়ির রেশারেশি বন্ধ করতেও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই ৩০টি গাড়ির চালককে জরিমানা করা হয়েছে। করোনাভাইরস সংক্রান্ত প্রোটোকল লঙ্ঘন করার জন্য দুটি গাড়ি থেকে ১৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পর্যটকদের মধ্যে ৭ জন দিল্লির ও ৮ জন উত্তর প্রদেশের।