পুলওয়ামার হামলার পর, চলতি বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের বালাকোটে বিমান হামলা চালিয়ে জইশ-ই মহম্মদের প্রশিক্ষণ শিবির গুঁড়িয়ে দিয়েছিল ভারতীয় বায়ুসেনা। সেই হামলায় জঙ্গি শিবিরের আদৌ ক্ষতি হয়েছিল কিনা তাই নিয়ে বিতর্কও কম হয়নি। সেই জঙ্গি ঘাঁটি ফের চালু হয়েছে বলে জানালেন ভারতীয় সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত।

এদিন চেন্নাই-এ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সেনাপ্রধান জানান, ভারতে প্রবেশ করার জন্য বালাকোটের শিবিরে ৫০০ জঙ্গি অপেক্ষায় রয়েছে। সেনাপ্রধানের দাবি, গত ফেব্রুয়ারিতে বায়ুসেনার হামলায় বালাকোটের জঙ্গি শিবির ক্ষতিগ্রস্থ, এবং ধ্বংস হয়েছিল। কিন্তু তা ফের নতুন করে চালু হয়েছে।

তিনি জানিয়েছেন, জঙ্গিদের ভারতে অনুপ্রবেশের সুযোগ করে দিতেই পাকিস্তান সীমান্তে ক্রমাগত যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে চলেছে। কিন্তু ভারতীয় সেনাও জানে কীভাবে তার মোকাবিলা করতে হয়। সীমান্তে সেনা সতর্ক রয়েছে, যথা সম্ভব জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ আটকানো হচ্ছে।

উরির হামলার পর ভারতীয় সেনা পাকিস্তানের মাটিতে 'সার্জিকাল স্ট্রাইক' চালিয়েছিল। আবার পুলওয়ামার ঘটনার র বায়ুসেনা বালাকোটে 'এয়ার স্ট্রাইক' করেছিল। ফের সেই জঙ্গি ঘাঁটি যখন চালু হয়েছে ভারত কী আরও একবার এয়ারস্ট্রাইক করবে? সেনা প্রধান কিন্তু এই বিষয়ে ধোঁয়াশা রেখে দিয়েছেন। তাঁর প্রশ্ন, ভারত একই পদক্ষেপ কেন ফের নিতে যাবে, কেন তার থেকে বড় কোনও পদক্ষেপ করবে না? সেই পদক্ষেপ কী হতে চলেছে তা প্রকাশ করতে চাননি বিপিন রাওয়াত। তাঁর কথায় পাকিস্তান এই নিয়ে ভেবে যাক।