ভারত পেঁয়াজের রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় বেজায় সমস্যায় বাংলাদেশ। ভারত সফরে এসে সেকথা স্বীকার করে নিলেন খোদ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মজাচ্ছলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বললেন, রাঁধুনিকে তিনি রান্নায় পেঁয়াজ দিতে বারণ করে দিয়েছেন। 

এই মুহূর্তে ইন্ডিয়া ইকোনমিক সামিটে যোগ দেওয়ার জন্য ভারতেই রয়েছেন শেখ হাসিনা। এ দিন সেই  মঞ্চেই বক্তব্য রাখতে গিয়ে হাসিনা পেঁয়াজের প্রসঙ্গ তোলেন। কোনও রাখঢাক না করেই তিনি বলেন, আগাম কোনও বিজ্ঞপ্তি না দিয়ে ভারত পেঁয়াজের রপ্তানি বন্ধ করায় বেজায় সমস্যায় পড়েছে তাঁর দেশ। হাসিনা বলেন, 'পেঁয়াজ কেনা আমাদের জন্য সত্যিই কঠিন হয়ে গিয়েছে। আমি জানি না কেন আপনারা রপ্তানি বন্ধ করে দিলেন। আমি আমার রাঁধুনিকে পেঁয়াজ ছাড়া রান্না করতে বলে দিয়েছি।'
বাংলাদেশি প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য শুনে সম্মেলন উপস্থিত শ্রোতারাও হাসিতে ফেটে পড়েন। 

গত ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে ভারত। বর্ষা বিদায় নিতে দেরি করায় তার প্রভাব পেঁয়াজের ফলনে পড়েছে। একশো কেজি পেঁয়াজের পাইকারি দাম দেশের বাজারে সাড়ে চার হাজার টাকায় পৌঁছেছে। যা গত ছ' বছরে সর্বোচ্চ। এর পরেই দাম নিয়ন্ত্রণে পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়।

ভারত রপ্তানি বন্ধ করায় ঢাকায় একশো কেজি পেঁয়াজের দাম ভারতীয় মুদ্রায় দশ হাজার টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছে। আপাতত পেঁয়াজ আমদানির জন্য তাই মায়ানমার, মিশর, তুরস্ক এবং চিনের দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশ। কিন্তু মিশরের মতো দেশ থেকে বাংলাদেশে পেঁয়াজ আসতে প্রায় একমাস সময় লেগে যায়। চিন থেকেও সময় লাগে পঁচিশ দিন। সেখানে ভারত থেকে মাত্র কয়েকদিনে পেঁয়াজ বাংলাদেশে পৌঁছে যায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে ভর্তুকি দিয়ে পেঁয়াজ বিক্রি করছে বাংলাদেশ সরকার। ভারত পেঁয়াজের রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় মালয়েশিয়াও বাংলাদেশের মতোই বিপাকে পড়েছে।