কবিগুরুর নামে নামকরণ হয়েছিল এক ডাইনোসরের! হ্যাঁ শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নামে নামাঙ্কিত সেই ডাইনোসরের নাম বারাপসরাস টেগোরেই। 

কয়েকদিন আগে টুইট করে এই তথ্যই শেয়ার করেন ইন্ডিয়ান ফরেস্ট সার্ভিস- এর অফিসার প্রবীণ কাসওয়ান। দ্রুত তাঁর এই টুইট ছড়িয়ে পড়ে। কবিগুরুকে নিয়ে এমন অজানা তথ্য জানতে পেরে কাসওয়ানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন অনেকেই। 

নিজের টুইটে কাসওয়ান জানিয়েছেন, ১৯৬০ সালে ভারতের আদিলাবাদ জেলায় ভারতে আবিষ্কৃত ডাইনোসরের প্রথম সম্পূর্ণ কঙ্কাল উদ্ধার হয়। যে প্রজাতির ডাইনোসরের কঙ্কাল উদ্ধার হয়, সেটি লম্বায় ছিল প্রায় ১৮ মিটার, ওজন ছিল ৭ টন। ডাইনোসরের এই প্রজাতিটি ছিল বারাপসরাস প্রজাতির। কিন্তু যেহেতু এই ডাইনোসরের জীবাষ্ম নিয়ে তথ্যানুসন্ধানের কাজ ১৯৬১ সালে শুরু হয়েছিল, তাই তার নামকরণ করা বারাপসরাস টেগোরি নামে। কারণ ১৯৬১ সালে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্ম শতবর্ষ পালিত হচ্ছিল দেশজুড়ে। তাই কবিগুরুর সম্মানেই ভারতে খুঁজে পাওয়া ওই ডাইনোসরের নামকরণ করা হয়। 

 

 

ভারতে প্রথম ডাইনোসরের জীবাষ্মের খোঁজ মিলেছিল ১৮২৮ সালে। সেই জীবাষ্ম পাঠানো হয়েছিল কলকাতা এবং লন্ডনের জাদুঘরে। কিন্তু ডাইনোসরের সঙ্গে যে বিশ্বকবির নাম জড়িয়ে আছে, তা অনেকের কাছেই অজানা ছিল। এমন তথ্য শেয়ার করার জন্য টুইটারেই অনেকে ওই আইএফএস অফিসারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। 

আরও পড়ুন- এক দেশ-এক ভাষা, রবীন্দ্রনাথের পরামর্শও অবজ্ঞা করছে বিজেপি সরকার

প্রবীণ কাসওয়ান আরও জানিয়েছেন, এক সময়ে ভারতের মাটিতেই দাপিয়ে বেড়াত ডাইনোসররা। তিনি লিখেছেন, 'ভারতে ডাইনোসরদের অস্তিত্ব নিয়ে অনেকেই হয়তো কিছুটা সংশয়ে আছেন। কিন্তু ভারতের জীববৈচিত্রের ইতিহাসে ডাইনোসরদের  উপস্থিতির উল্লেখ রয়েছে। গাঁধীনগর এবং হিমাচল প্রদেশের সিরমরে ডাইনোসরদের ফসিল পার্কও রয়েছে। কলকাতা জাদুঘরেও ডাইনোসরদের কঙ্কাল দেখা যায়। 

আর এক টুইটার ব্যবহারকারী প্রবীণ কাসওয়ানের টুইটের জবাব দিতে গিয়ে লিখেছেন, বর্তমান গুজরাত একসময় ডিম পাড়ার জন্য ডাইনোসরদের প্রিয় জায়গা ছিল। 

কিন্তু কবিগুরুর নামাঙ্কিত সেই ডাইনোসরের কঙ্কালটি এখন কোথায় রয়েছে? এই প্রশ্নের স্পষ্ট উত্তর নেই কাসওয়ানের টুইটে। যদিও একটি সর্বভারতীয় ইংরেজি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, দীর্ঘদিন ধরেই সেই কঙ্কাল রয়েছে কলকাতার বি টি রোডে অবস্থিত আইএসআই- এর জিওলজিক্যাল স্টাডি ইউনিট মিউজিয়ামে। ওই সংগ্রহশালায় জনসাধারণের প্রবেশের অনুমতিও থাকে না। তাছাড়া বাজেট সীমাবদ্ধ হওয়ায়, কবিগুরুর নামাঙ্কিত ডাইনোসরের কঙ্কাল- সহ অন্যান্য জীবাষ্ম সংরক্ষণের জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থাও নিতে পারেন না কর্তৃপক্ষ। ফলে ভারতে আবিষ্কৃত হওয়া ডাইনোসরের প্রথম সম্পূর্ণ কঙ্কাল যার সঙ্গে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাম জড়িয়ে রয়েছে, সেটিকে আদৌ কতদিন সংরক্ষণ করা যাবে, তা নিয়েই উঠছে প্রশ্ন।