মহামারির এই আবহে তৃতীয় বা শেষ শেষ দফার ভোট দিচ্ছে বিহার। শনিবার ভোট গ্রহণ হচ্ছে ১৫টি জেলার ৭৮টি আসনে। ১২০৪ জন প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারণ করবেন ২ কোটি ৩৫ লক্ষ ৫৪ হাজার ০৭১ জন ভোটার। কিন্তু তৃতীয় দফার এই নির্বাচনই সবথেকে বড় চ্যালেঞ্চ নির্বাচন কামিশনের কাছে। কারণ শেষ দফায় নির্বাচন যেসব জেলায় হচ্ছে তার অধিকাংশ করোনা আক্রান্ত জেলার ক্রমতালিকায় রয়েছে। 

মুজাফ্ফরপুর
বিহারের করোনা আক্রান্ত জেলার ক্রমতালিয়ার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এই জেলা। প্রথম স্থানে রয়েছে পাটনা। মোট আক্রান্তের সংথ্যা -৯ হাজার ৯৭০। মৃত্যু হয়েছে ৪২ জনের। 
পুর্ণিয়া
করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮,২৮৯। মৃত্যু হয়ে ১৬ জনের। বিহারের করোনা আক্রান্ত জেলার ক্রম তালিকায় ৪ নম্বরে রয়েছে। 
পূর্ব চম্পারণ
করোনা আক্রান্তের তালিকায় পঞ্চমে থাকে এই জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭,৭৬৫। মৃত্যু হয়েছে ৪৪ জনের। 
মধুবনি
সপ্তমে থাকা এই জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ৭,০২১। মৃত্যু হয়েছে ২৩ জনের। 
কাটিহার
করোনা আক্রান্তের জেলার তালিকায় ১০ নম্বরে রয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা ৬,৫৮৯। মৃতের সংখ্যা ১১। 

এছাড়াও আক্রান্তের সংখ্যা রীতিমত উদ্বেগজনক আরিয়া, পশ্চিম চম্পারণসহ বেশ কয়েকটি জেলায়। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া হিসেব অনুযায়ী বিহারে করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ২ লক্ষ ২০ হাজার ০৯৯। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭৫০ জন। এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১১২৯ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৮ জনের। করোনা আক্রান্ত রাজ্যগুলির ক্রমতালিকায় বিহার অনেকটা নিচের দিকে থাকলেও তৃতীয় দফার নির্বাচন চিন্তারা ভাঁজ বাড়াচ্ছে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

তৃতীয় দফায় ১৫ টি জেলার ৭৮টি আসনে ভোট গ্রহণ হবে।অধিকাংশ এলাকাই মুসলিম ও দলিত অধ্যুসিত। এখানে সরকার ও বিরোধী দুই পক্ষকেই লোকজনশক্তি পার্টির পাশাপাশি মোকাবিলা করতে হবে আসাদউদ্দিন ওয়াইসির এআইএমআইএমএর সঙ্গে। মায়াবতীর বহুজন সমাজও এখানে প্রার্থী দিয়েছে। অন্যদিকে ভোট ময়দানে রয়েছে  উপেন্দ্র কুশওয়াহার আরএলএসপি। শেষ দফার নির্বাচনে অস্তিত্ত্বের লড়াই বামেদেরও। তৃতীয় দফায় সবথেকে বেশি আসনে ভোট পরীক্ষা দিতে হবে জেডিইউকে। জেডিইউ-র প্রার্থী সংখ্যা ২৮। আরজেডির ২০ বিজেপির ১৯ কংগ্রেসের ১০।  বাকিরা লড়াই করছে ৫টি কেন্দ্রে।