মহারাষ্ট্রে সরকার গড়ার জন্য রাজ্যপাল ভগত সিং কোশিয়ারির আহ্বান ফিরিয়ে দিল বিজেপি। এদিন বিকেলে মহারাষ্ট্রের ভারপ্রাপ্ত মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ রাজ্যপালের বাসভবনে গিয়ে এই কথা জানান। তাঁর সঙ্গে বিজেপির মহারাষ্ট্রের রাজ্য সবাপতি চন্দ্রকান্ত পাতিল-সহ বেশ কয়েকজন বিশিষ্ট নেতা ছিলেন। এদিন দুপুরে রাজ্যপালের আহ্বান নিয়ে বিজেপির কোর কমিটির একটি বৈঠক হয়। সেখানেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রাদজ্যপালের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিক সম্মেলনে এসে চন্দ্রকান্ত পাতিল জানান, মহারাষ্ট্রের মানুষ বিজেপীি-শিবসেনা জোটকে ভোট,দিয়েছিল। শিবসেনা জনমতকে অপমান করছে। যদি এলসিপি-কংগ্রেসের সহ্গে মিলে বিজেপি শিবসেনা সরকার গ়তে চায়. গড়তে পারে। 

এদিকে,  রবিবার ফের মহারাষ্ট্রে মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবি তুলেছেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। তিনি বলেছেন, যে তারা এতদিন অন্য লোকের পালকি যথেষ্ট বহন করেছেন। এবার তিনি নিশ্চিত করবেন, যাতে এবার কোনও শিব সৈনিকই সেই  পালকিতে বসতে পারে। রবিবার মালাদের একটি রিসর্টে দলীয় বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠক শেষে ঠাকরে এই মন্তব্য করেন।

শনিবার দেবেন্দ্র ফড়নবিশকে সরকার গঠনের আহ্বান জানিয়ে ৫৬ ঘন্টা সময় দিয়েছিলেন রাজ্যপাল। এইবার দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে শিবসেনাকে সরকার গঠনের আহ্বান জানানো হবে। তারাও নারাজ হলে এনসিপি-কংগ্রেসকে ডাকা হবে। মহারাষ্ট্রে এইবার বিজেপি এককভাবে ১০৫টি আসন জিতেছে। অন্যদিকে শিবসেনা ৫৬, এনসিপি ৫৪ এবং কংগ্রেস ৪৪ টি আসনে জয়ী হয়েছে। অর্থাৎ, বিজপি সরকার গড়লে বিরোধীরা জোট বাঁধলে অনাস্থা প্রস্তাবে হেরে যেত বিজেপি। সেই সম্ভাবনাতেই বিজেপি সরকার গড়ার রাস্তা থেকে সরে এল।