জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লার দাড়িওয়ালা একটি ছবি সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। যে ছবি দেখে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ অনেকেই বিস্মিত হয়েছিলেন। যদিও ছবিটি ওমর-এরই কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। কিন্তু তামিলনাড়ু বিজেপির  পক্ষ থেকে এই ছবিটির ভিত্তিতেই ওমর আবদুল্লাকে একটি 'বিশেষ উপহার', পাঠানো হল।

মঙ্গলবার (২৮ জানুয়ারি) সোশ্য়াল মিডিয়ায় তামিলনাড়ু বিজেপির পক্ষ থেকে একটি অ্যামাজন কার্টের স্ক্রিনশট শেয়ার করা হয়। তাতে দেখা যাচ্ছে ওমর আবদুল্লাহকে তারা একটি দাড়ি কাটার রেজার পাঠিয়েছে। পোস্টটিতে ওমরকে ট্যাগ করে বলা হয়েছে, তাঁর 'দুর্নীতিবাজ বন্ধুরা' যখন বাইরে ফুর্তিতে রয়েছে, তখন ওমরকে এমন অবস্থায় দেখতে পাওয়া 'হতাশাজনক'। তাই জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে তাঁদের 'আন্তরিক অবদান' গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করেছে তামিলনাড়ু বিজেপি। 'কোনও সহায়তার জন্য' তাঁকে কংগ্রেস দলের সঙ্গে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

দিন দুই আগেই প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে অ্যামাজনের মাধ্যমে ভারতের সংবিধানের একটি কপি পাঠানো হয়েছিল। সেই কার্টের স্ক্রিনশট শেয়ার করেছিল জাতীয় কংগ্রেস। যদিও সোমবার আরও একটি স্ক্রিনশট শেয়ার করে তারা জানায় প্রধানমন্ত্রী তাদের উপহার গ্রহণ করেননি। এবার তাদের দেখানো রাস্তাই নিল তামিলনাড়ু বিজেপি।

দিন কয়েক আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি দাড়িওয়ালা হাসিমুখের ছবি ভাইরাল হয়। দাবি করা হয়, ছবিটি কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের পর থেকে গৃহবন্দী থাকা ওমর আবদুল্লার ছবি। তাঁর মাথায় ছিল পশমী টুপি। গালে লম্বা সাদা দাড়ি। তুষারাবৃত কাশ্মীরের  প্রেক্ষাপটে হাসতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে।

তাঁর এই ছবি নিয়ে বিরোধী নেতারা তীব্র প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান তিনি ওমর-কে চিনতেই পারছিলেন না। কংগ্রেসের মুখপাত্র জয়বীর শেরগিল আশা প্রকাশ করেন, বিজেপি শীঘ্রই তাঁকে মুক্তি দেবে। শিবসেনার মুখপাত্র প্রিয়ঙ্কা চতুর্বেদী বলেন, তিনি ওমরের টুইটার রসিকতার অভাব বোধ করছেন। ডিএমকে সভাপতি এম কে স্টালিন বলেন, ছবিটি দেখে তিনি বিপর্যস্ত।

তবে, এই উপহার পাঠিয়ে ওমর ও বিজেপি বিরোধী নেতাদের ব্যঙ্গ করতে গিয়ে নিজেরাই সোশ্য়াল মিডিয়ায় ট্রোলিং-এর শিকার হয়েছে বিজেপি। প্রথমত ইংরাজি 'ফ্রেন্ডস' বানানটি তারা ভুল লিখেছে। দ্বিতীয়ত, ওমর আবদুল্লা-কে তারা রেজারচি পাঠিয়েছে 'জি -১, গুপ্তার রোড, শ্রীনগর'-এর ঠিকানায়। কিন্তু ওমর-কে এখন বন্দি রাখা হয়েছে যেখানে, তার ঠিকানা 'গুপকার রোড'-এর। গত ১৫ জানুয়ারী, তাঁকে হরি নিবাস থেকে এই গুপকার রোডের বাড়িতে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। চাপের মুখে পড়ে পোস্টটি সরিয়ে দেওয়া হয়। এর আগে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গিরিরাজ সিং বলেছিলেন, বিজেপি কাশ্মীর উপত্যকা থেকে কেবল ৩৭০ ধারা বাতিল করেছে, রেজার নয়।