২০১৮ সালের আত্মহত্যার প্ররোচনা দেওয়ার মামলায় জামিন মিলল না রিপাব্লিক টিভির অর্ণব গোস্বামীর। বম্বে হাইকোর্ট তাঁর জামিনের আবেদন নাকচ করে দেয়। তবে তাঁকে নিম্ন আদালতে জামিনের আবেদন করতে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পাল্টা অর্ণব গোস্বামী হাইকোর্টকে জানিয়েছিলেন দু বছর পুরনো মামলা খোলা আর তাঁকে গ্রেফতার পুরোপুরি অবৈধ। তবে হাইকোর্টের দুই সদস্যের বেঞ্চ জানিয়ে দিয়েছে, রাজ্যপুলিশ যদি কোনও তদন্ত পুনরায় চালু করে তাহলে তাকে অবৈধ ও অনিয়মিত বলা যায় না।  

অন্যদিকে অর্ণব গোস্বামীর স্বাস্থ্যের বিষয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল ভগত সিং কোশিয়ারি। মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখের সঙ্গে তিনি কথা বলেছিলেন। আর সেই সময়ই রিপাব্লিক টিভির প্রধান অর্ণব গোস্বামীর স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বলে রাজভবন জানিয়েছে। একই সঙ্গে জেলবন্দি অর্ণবের সঙ্গে তাঁর পরিবারকে দেখা করার অনুমতি দেওয়ার জন্যও বলেছেন বলে সূত্রের খবর। 

গত সপ্তাহে মহারাষ্ট্রের পুলিশ গ্রেফতার করেছিল অর্ণব গোস্বামী। ২০১৮ সালে অন্বয় নায়েক নামে এক ব্যক্তির পাওয়া টাকা না মিটিয়ে তাঁকে  আত্মহত্যার প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। নিহত ব্যক্তি ইন্টিরিটার ডিজাইনার ছিলেন।  নিহত ব্যক্তি সুইসাইড নোটে অর্ণবসহ দুই ব্যক্তির নাম লিখেগিয়েছিলেন। দেবেন্দ্র ফড়নবীশ সরকারের আমলেএই মামলা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু উদ্ধব ঠাকরের সরকার  গঠন হওয়ার পর নিহতের মেয়ে ও স্ত্রী এই আবারও তদন্তের দাবি জানিয়েছিলেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পুনরায় সেই ঘটনার তদন্ত শুরু করেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে গ্রেফতার করা হয় অর্ণব গোস্বামীকে। এই মামলাতেই মুম্বইয়ের আলিবাগ আদালত অর্ণব গোস্বামীকে ১৮ই নভেম্বর পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিল। তারপর তাঁকে স্থানীয় একটি স্কুলে রাখা হয়েছে। করোনাভাইরাস সংক্রান্ত পরিস্থিতির কারণে যা সংশোধনাগার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। পরবর্তীকালে তাঁকে তালোজা আদালতে পাঠান হয়েছিল।