কেরলের কোঝিকোড় বিমানবন্দরে শুক্রবার সন্ধ্যার বিমান দুর্ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে মলপ্পুরম জেলার পুলিশ। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়েছিল ৩ জনের। আর তারমধ্যে ছিলেন এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের বিমানটির চালক ক্যাপ্টেন দীপক বসন্থ সথে।

দুর্ঘটনার সঠিক কারণ এখনও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। এই বিষে বিশদ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে ডিজিসিএ। কিন্তু, অনেকেই মনে করছেন কোঝিকোড় বিমানবন্দরটি একটি টেবিলটপ বিমান বন্দর, অর্থাৎ একটি মালভূমির উপরে অবস্থিত হওয়ায় পাইলটদের দৃষ্টি বিভ্রম ঘটে থাকতে পারে। কারণ এই ধরণের বিমান বন্দরে অবতরমের জন্য দরকার সুদক্ষ পাইলট। দক্ষতা বা অভিজ্ঞতা - কোনওটাই কিন্তু কম ছিল না দুর্ঘটনার কবলে পড়া বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন দীপক সথে-র।

বস্তুত ভারতীয় বায়ুসেনার এক অবসরপ্রাপ্ত উইং কমান্ডার ছিলেন ক্যাপ্টেন সথে। এয়ার ইন্ডিয়া সংস্থায় যোগদানের আগে তিনি আইএএফ-এর এক্সপেরিমেন্টাল টেস্ট পাইলট ছিলেন। ১৯৯১ সালের এপ্রিল মাসে ভারতীয় বায়ুসেনায় যোগ দিয়েছিলেন তিনি। ২০০৩ সাল পর্যন্ত ১২ বছর এক্সপেরিমেন্টাল টেস্ট পাইলট হিসাবে কাজ করেছিলেন। তারপর থেকে মুম্বই-এর বাসিন্দা ক্যাপ্টেন দীপক সথে এয়ার ইন্ডিয়ার যাত্রীবাহী বিমানে চালক হিসাবে কাজ করতেন।

এদিনের দুর্ঘটনাগ্রস্ত বিমানটি বোয়িং-৩৭৭ মডেলের। এই বিশেষ বিমানটি পরিচালনার বিষয়ে দীপ সথে বিশেষ অভিজ্ঞ ক্যাপ্টেন ছিলেন বলেই জানা গিয়েছে। পেশাদার পাইলট হিসাবে বিশেষ নাম ছিল তাঁর। ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যাকাডেমিতে গোল্ড মেডেল পেয়েছিলেন। সেরা গ্রাউন্ড ক্য়াডেট হিসাবে 'সোর্ড অফ অনার' খেতাবও পেয়েছিলেন তিনি।

এদিনের দুর্ঘটনায় শুধু তিনিই নন, পরে হাসপাতাল থেকে মৃত্যুসংবাদ এসেছে তাঁর কো-পাইলট অখিলেশ কুমার-এরও।