বিয়ের নামে জোর করে ধর্ম পরিবর্তন বা 'লভ জিহাদ' নিয়ে একাধিকবার সরব হয়েছে গেরুয়া শিবির। প্রতিবাদের আওয়াজ তুলেছে নানা হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলি। যেন তেনও প্রকারে ধর্মান্তরণ বন্ধ করার পক্ষে সওয়াল করেছেন অনেকেই। ইতিমধ্যেই দেশের বিজেপি শাসিত একাধিক রাজ্য  ধর্মান্তরণ বিরোধী আইন লাগু করার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। তবে ধর্মান্তরন বিরোধী আইন আনার পথে যে এখন হাঁটছে না কেন্দ্রের বিজেপির নেতৃত্বে এনডিএ সরকার।

উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ। অসম, হরিয়ানা এবং কর্নাটকেও এ নিয়ে আইন আনার ভাবনাচিন্তা শুরু হয়ে গিয়েছে। বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলিতে ধর্মান্তরন বিরোধী আইন আনা নিয়ে শোরগোল শুরু হয়েছে দেশ জুড়ে। এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্র কী বাবছে, তারাও কি এই ধরনের আইন আনার কোনও পরিকল্পনা করছে কিনা তা নিয়ে কৌতুহল শুরু হয়েছে। দেশের ৫ জন সাংসদ এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে তাদের ভাবনা জানতে চেয়ে প্রশ্ন তুলে ধরেন। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জি কিশান রেড্ডি বলেন, এমন কোনও সম্ভাবনাই নেই।

তবে এই বিষয়টি যে কেন্দ্রের নয়, রাজ্য সরকারের এক্তিয়ারভুক্ত তাও জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন,'সংবিধানের সপ্তম তফশিল অনুযায়ী আইন এবং পুলিশ রাজ্যের এক্তিয়ারের মধ্যে পড়ে। অতএব ধর্মান্তরণ সংক্রান্ত কোনও বিষয় ঘটে থাকলে তা চিহ্নিত করা, আটকানো, তদন্ত করা এবং আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার অধিকার রয়েছে রাজ্যের। তারাই সেই মতো পদক্ষেপ করবে।' রাজনৈতিক মহলের মতে, কেন্দ্র না আনলেও, বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলি ধর্মান্তরন বিরোধী আইন আনতে পারে, তা প্রকারন্তরে বুঝিয়ে দিলেন জি কিষাণ রেড্ডি।