২০১৪ সালের ২ অক্টোবর দিনটি থেকেই ভারতে শুরু হয়েছিল স্বচ্ছ ভারত মিশন। এবার সেই স্বচ্ছ ভারতকে আরও বেশি সচ্ছ করে তুলতে ব্ন্ধ হতে চলেছে প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার। প্লাস্টিকের ব্যাগ থেকে শুরু করে প্লাস্টিকের কাপ সব কিছু বন্ধ হয়ে যাবে বলে জানানো হয়েছে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে। 

প্লাস্টিকের পণ্য ব্যবহারের ফলে পরিবেশ সবথেকে বেশি দূষিত হয়। প্লাস্টিক এমন একটি বর্জ্য পদার্থ যা পুরোপুরি মাটির সাঙ্গে মিশে যেতে পারেনা। প্লাস্টিকজাত পদার্থের বেশিরভাগটাই গিয়ে জমা হয় সমুদ্রে। যার ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয় জলজ প্রাণীও। যার ছবি বার বার উঠে এসেছে বহু ভিডিওর মাধ্যমে। এবার সেই প্লাস্টিককেই সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করার উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। আগামী ২ অক্টোবরের দিন থেকে শুরু হয়ে যাবে এর কর্মসূচি। ২০২২ সালের মধ্যে সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করা হবে এই ব্যবহার। যার মধ্যে দিয়েই প্লাস্টিকমুক্ত এক ভারত গড়ার স্বপ্ন দেখছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

আগেও বহুবার এই প্লাসটিক বন্ধ করার জন্য নানা নিয়ম চালু হয়েছিল ভারতে। সেই সব নিয়মে তেমন খুব একটা কাজ হয়নি। এখনও ভারতের সর্বত্র প্রায় প্লাস্টিকের ব্যবহার হয়ে থাকে। তেমন কোনও কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলেই আজও মানুষ নির্ধিদ্বায় প্লাসটিকের ব্যবহার করতে পারছে বলে মনে করছেন অনেকেই। এবার পরিবেশকে প্লাস্টিকমুক্ত করতে বন্ধ হতে চলেছে প্লাস্টিক সহ প্লাস্টিকজাত নানা বর্জ্য পদার্থের ব্যবহার। সেই তালিকায় থাকছে প্লাস্টিক কাপ, ব্যাগ, পানীয়র স্ট্র সহ যে কোনও প্লাস্টিজাত দ্রব্য। পরিবেশবিদরা মনে করছেন এই প্লাস্টিকের ব্যবহার বন্ধ করলে ১ কোটি  ৪০ লক্ষ প্লাস্টিকের ব্যবহার ৫ শতাংশ থকে ১০ শতাংশ হ্রাস পাবে। প্লাস্টিক ব্যবহারের এই নিষেধাজ্ঞা না মানলে দিতে হবে জরিমানা। এই জরিমানার পদ্ধতি তবে চালু হতে এখনও কিছুদিন দেরি আছে।