গ্রীষ্মপ্রধান দেশ ভারতবর্ষে বর্ষার খামখেয়ালিপনা এই প্রথম নয়। তবে এই বছরে বর্ষার মতিগতি বোঝা হল সবথেকে দুস্কর। ভারতে বর্ষার আসা-যাওয়ার এই খামখেয়ালিপনার জন্য ভারতের আবহ দফতর বর্ষার আগমন এবং গমনের বিষয়টি নিয়ে পুনর্বিবেচনা করতে শুরু করেছেন। ভারতের আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, আবহাওয়ার পরিবর্তনের জন্যই এবার বর্ষার ক্যালেন্ডারে আসতে চলেছে পরিবর্তন।

এতদিন পর্যন্ত এদেশে দক্ষিণ ভারতে বর্ষা প্রবেশ করত ১ জুন তারিখে। তারপর আস্তে আস্তে সারা ভারতবর্ষ ঘুরে বর্ষা বিদায় নেয় ১ সেপ্টেম্বর তারিখ নাগাদ। এই নির্ঘন্ট চলে আসছে আজ থেকে প্রায় ৭৮ বছর আগে। ১৯৪১ সাল থেকে। তবে এবার সেই নির্ঘণ্টে আসতে চলেছে ব্যপক পরিবর্তন। বর্ষার পরিবর্তীত নির্ঘণ্ট পেলে সবথেকে বেশি উপকৃত হবেন চাষীভাইরা। বর্ষার আগমনের বার্তা সঠিকভাবে পেলে তাঁরা আগে থেকে চাষের জলের যোগান প্রস্তুত করতে পারবেন। 

অসমে বন্যপ্রাণীদের সুরক্ষার্থে গাড়ি চালানো নিয়ে সতর্কবার্তা দিলেন রোহিত শর্মা

আবহবিদরা জানিয়েছেন ৭৮ বছর আগে বর্ষার যে নির্ঘণ্ট তৈরি করা হয়েছিল তার সঙ্গে আজকের দিনের পরিস্থিতির কোনও মিল নেই। এক অন্যতম কারণ হল আবহাওয়ার পরিবর্তন। গত ৫০ বছরে প্রায় ২৬ বার মতো বর্ষার আসা-যাওয়ায় এসেছে পরিবর্তন। এর ফলে দক্ষিণ ভারতে কোনও কোনও বছর সময়ের আগেই প্রবেশ করেছে বর্ষা, কোনও কোনও বছর আবার নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে যাওয়াপ পরেও অপেক্ষা করতে হয়েছে আরও বেশকিছু সময়। ভারতের আবহাবওয়া দফতর সূত্রে খবর, এই পরিস্থিতিতে বর্ষার নির্দিষ্ট সময়সূচী পরিবর্তন করা একান্ত আবশ্যক। তাই যত শীঘ্রই সম্ভব নির্ঘণ্ট বদল করা নিয়ে সিদ্ধান্ত আসতে চান আবহবিদরা।