নিজের লোকসভা কেন্দ্র ওয়ানাড়ে রয়েছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। সেখানকার একটি স্কুলের সায়েন্স ল্যাবের উদ্বোধনে গিয়েছিলেন  রাহুল। অনুষ্ঠান চলাকালীন   রাহুল  বলেন কোনো পড়ুয়া তাঁর ভাষণকে ইংরেজি থেকে মালয়ালমে অনুবাদ করতে চান কিনা। রাহুলের কথা শুনে মঞ্চেই হেসে ফেলেছিলেন তাঁর অনুবাদক তথা কংগ্রেস নেতা কেসি বেণুগোপাল। তবে চ্যালেঞ্জ নিতে পিছপা হননি ওই স্কুলেরই দ্বাদশ শ্রেণির এক ছাত্রী। সেই ছাত্রী সাফা সেবিন সোজা চলে আসেন মঞ্চে। আর আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতির বক্তব্যেবর মালয়ালমে তর্জমা করতে থাকেন। 

প্রথমে মঞ্চে উঠে রাহুলের মুখোমুখি হয়ে তাঁকে হাতজোড় করে নমস্কার করেন সাফা। কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতিও তাঁকে পাল্টা নমস্কার করেন। এরপর সাফার হাতে মাইক তুলে রাহুল বক্তব্য রাখতে শুরু করেন।  আতবিশ্বাসের সঙ্গে রাহুলের বক্তব্যের তর্জা করতে থাকেন সাফা, আর ততই হাততালি পড়তে থাকে দর্শকদের। 

 

 

রাহুল ইংরেজিতে বলতে থাকেন, "আমি তোমাদের বিজ্ঞানের সারমর্ম বলব। বিজ্ঞানের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় খোলা মন। তোমাদের মনকেই বন্ধ রাখলে চলবে না। তাই  তোমাদের অন্যের কথা শুনতে হবে।" রাহুলের এইসব কথাই ইংরেজি থেকে মালয়ালমে অনুবাদ করেন সাফা সেবিন। তবে এই অনুবাদ করতে গিয়ে লজ্জাও পাচ্ছিল সাফা। সাফার অনুবাদ ক্ষমতার প্রশংসা শোনা যায় রাহুল গান্ধীর কন্ঠেও।