বর্ষার দিনে সাপখোপ জঙ্গল থেকে বেরিয়ে লোকালয়ে ঢুকে পড়বে- এটাই গ্রামীণ এলাকার পরিচিত দৃশ্য। মাঝেমধ্যে বিষধর সাপের উপদ্রবে অনেক প্রাণহানিও ঘটে। তবে  উত্তর প্রদেশের মির্জাপুরে এক বাড়িতে আশ্রয় নেওয়া বিষাক্ত গোখরো সাপ এক যুবকের সঙ্গে যা করল, তাতে চোখ কপালে ওঠার জোগাড় সবার।

আরও পড়ুন: আনলক ৩ পর্বে ঘুরতে চলুন ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্সে, তবে থাকতে হবে কোভিড পরীক্ষার রিপোর্ট

জানা যাচ্ছে, রাতে খাওয়ার পর শুয়ে ছিলেন তিনি। তখনই আচমকা একটি বিষাক্ত গোখরো তার প্যান্টের ভেতর ঢুকে পড়ে। তার পরই শুরু আসল খেলা। সেই যুবকের তো ভয়ে প্রায় প্রাণ যায় যায় অবস্থা। প্যান্টের ভেতর থেকে গোখরো নিজে থেকে বেরোচ্ছে না। এদিকে তিনি সেটিকে বের করার জন্য কিছু করতেও পারছেন না। এভাবেই দীর্ঘ ৭ ঘণ্টা কাটাতে হল ওই যুবককে। তবে ওই  যুবকের সৌভাগ্য যে সাপটি তাঁকে ছোবল মারেনি। যদিও মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচার জন্য যুবকটিকে  দিতে হয়েছে  ধৈর্য্যের কঠিন পরীক্ষা।

আরও পড়ুন: আমেরিকাতেও টিকটকের উপর নিষেধাজ্ঞার খাড়া, অধিগ্রহণ করতে চাইছে মাইক্রোসফট

 ঘটনাটি সম্প্রতি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের মির্জাপুরের সিকন্দরপুর গ্রামে। ওই যুবকের নাম লাভকেশ কুমার। ইতিমধ্যে  সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে তাঁর সেই ভিডিও। যেখানে দেখা যাচ্ছে, পিলার ধরে দাঁড়িয়ে আছেন লাভকেশ। আর এক  সাপুড়ে কাঁচি দিয়ে ধীরে ধীরে কাটছেন তাঁর প্যান্ট। সেই সময় ভীত মুখে পাথরের মতো দাঁড়িয়ে ছিলেন ওই যুবক। প্যান্ট কাটার পর বেরিয়ে গেল গোখরোটি।  হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন লাভকেশ। ওই সময় যুবকের মানসিক অবস্থায় কথা ভেবে অনেকেই আঁতকে উঠছেন।

 

 

জানা যাচ্ছে এক দল শ্রমিক বিদ্যুতের পোল ও তার লাগানোর কাজ করতে গিয়েছিলেন সিকন্দরপুর গ্রামে। সেই দলে ছিল লাভকেশও। সেখানে রাতে খাওয়া দাওয়ার পর ঘুমিয়ে পড়েছিলেন তাঁরা। মধ্যরাতে ঘুমানোর সময় লাভকেশের প্যান্টের ভিতর ঢুকে যায় গোখরোটি। তার পর দেওয়ালের পিলার ধরে প্রায় সাত ঘণ্টা দাঁড়িয়ে ছিলেন ওই যুবক। আর সাপটি ঢুকে ছিল তাঁর প্যান্টের মধ্যেই। শেষপর্যন্ত সাপুড়ে এসে সাবধানে যুবকের প্যান্ট কেটে বার করেন সাপটিকে। গোখরোটিকে ঝুলিতে ভরেও নেন তিনি। 

লাভকেশের প্যান্টে ঢুকে থাকা সাপটিকে দেখতে উৎসাহী গ্রামবাসীরাও জড়ো হয়েছিল সেখানে। খবর পেয়ে এসেছিলও পুলিশও।  যদিও এত কিছুর মধ্যেই ওই যুবককে কামড়ায়নি গোখরোটি।