জুন মাসের শেষেই চিনের উপর প্রথম ডিজিট্যাল স্ট্রাইক চালিয়েছে ভারত। নিষিদ্ধ করা হয়েছে জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ টিকটক সহ একাধিক জনপ্রিয় চিনা অ্যাপকে। এখানেই থেমে থাকেনি ভারত সরকার। বেজিংকে শিক্ষা দিতে চলতি সপ্তাহেই দ্বিতীয়বার চিনের উপর  ডিজিট্যাল স্ট্রাইক চালিয়েছে দিল্লি। সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত ১০৬ টি চিনা অ্যাপকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে ভারত। আগামী দিনে আরও একাধিক চিনা অ্যাপকে ভারত সরকার নিষিদ্ধ করতে পারে সেই কথাও শওনা যাচ্ছে। আমেরিকার প্রশাসন আগেই ভারত সরকারের চিনের বিরুদ্ধে এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে। এবার মোদী সরকারের দেখান পথেই হাঁটতে চাইছে ট্রাম্প প্রশাসনও।

আমেরিকাতেও টিকটক নিষিদ্ধ করা হবে।  এমনটাই জানালেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শনিবার থেকেই সেই কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন তিনি। 

মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন যে তাঁর প্রশাসন চিনের ভিডিও অ্যাপটি নিষিদ্ধ করার বিষয়ে বিবেচনা করছে। রাষ্ট্রপতি ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের বলেন, “আমরা টিকটকের দিকে নজর দিচ্ছি। আমরা টিকটককে নিষিদ্ধ করতে পারি।”

আরও পড়ুন: আনলক ৩ পর্বে ঘুরতে চলুন ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্সে, তবে থাকতে হবে কোভিড পরীক্ষার রিপোর্ট

শুক্রবার ফ্লোরিডা থেকে ফেরার পরে এয়ার ফোর্স ওয়ানের সাংবাদিকদের  ট্রাম্প  বলেন, “আমরা আমেরিকা থেকে টিকটক নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে চলেছি। আমার এই অধিকার রয়েছে।” জানা গিয়েছে, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এই অ্যাপের সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। তারা জানিয়েছে, এই অ্যাপের মাধ্যমে গোপনে তথ্য সংগ্রহ করছে চিন। এই একই অভিযোগ উঠেছিল ভারতেও। তারপরেই টিকটক বন্ধ করে দেওয়া হয় এদেশে। একই অভিযোগ উঠেছে মার্কিন মুলুকেও। যদিও টিকটকের তরফে বারবার এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

এরমধ্যেই আবার শোনা যাচ্ছে, টিকটকের মার্কিন কার্যক্রম অধিগ্রহণ করতে চাইছে বিশ্ব বিখ্যাত তথ্যপ্রযুক্তি মাইক্রোসফট। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল দাবি করছে,  টিকটকের মার্কিন পরিচালনা ক্ষমতা অর্জনের জন্য সিইও সত্য নাদেল্লার নেতৃত্বে মাইক্রোসফট ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছে। এই চুক্তি কয়েক বিলিয়ন ডলারের হতে পারে।

আরও পড়ুন: ইদে দেশবাসীকে শুভেচ্ছাবার্তা প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির, বাংলাদেশেরও শ্রীবৃদ্ধি কামনা মোদীর

ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছে, এই বিষয়ে একটি চুক্তি সোমবারের মধ্যেই চূড়ান্ত হতে পারে। ইতিমধ্যেই মাইক্রোসফট, বাইটড্যান্স এবং হোয়াইট হাউসের প্রতিনিধিদের মধ্যে  এই আলোচনা চলছে। চিনের বাইটড্যান্স টিকটকের মূল সংস্থা। সেক্ষেত্রে সরাসরি নিষেধাজ্ঞা না চাপিয়ে টিকটকের মার্কিন পরিচালনার ভার মাইক্রোসফটেকে হস্তান্তর করার নির্দেশ বাইট ড্যান্সকে দিতে পারে ট্রাম্প প্রশাসন।