এদেশে রাজনীতিকদের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ক্রমেই জাঁকিয়ে বসছে। করোনা আক্রান্ত খোদ দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। শুধু তাই নিয়ে একই ভাবে সংক্রমণের শিকার হয়েছেন দেশের একাধিক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীও। মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহ্বানের পর গত রবিবারই করোনা পজিটিভ হন কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পা। এবার কর্ণাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর ঘরেও হানা দিল মারণ ভাইরাস। সংক্রমণের শিকার হলেন কংগ্রেস নেতা সিদ্দারামাইয়া। 

 

 

 কর্নাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেসের শীর্ষ নেতা সিদ্দারামাইয়া নিজেই  জানিয়েছেন তিনি করোনা আক্রান্ত। মঙ্গলবার সকালে ট্যুইটে করে সিদ্দারামাইয়া বলেন , তাঁর কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তিনি লেখেন , 'আমার কোভিড ১৯ টেস্ট পজিটিভ এসেছে এবং ডাক্তারদের পরামর্শ মতো সতর্কতা নিতে আমি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। যাঁরা আমার সংস্পর্শে এসেছেন তাঁদের সবাইকে অনুরোধ করছি, কোনও উপসর্গ আছে কি না দেখে নিন এবং নিজেদের কোয়ারানটিনে রাখুন।'

 

 

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত হয়ে বেঙ্গালুরুর ওল্ড এয়ারপোর্ট রোডের মণিপাল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পা। সেই একই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়াকেও।

 

 

এদিকে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের কোভিড ১৯ পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও তিনি সেলফ আইসোলেশনে গিয়েছেন। সোমবারই ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর পরিবারের ২ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হন। পরিবারের ২ সদস্যের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ হওয়ার পরেই তিনি  সিদ্ধান্ত নেন আইসোলেশনে থাকার। মঙ্গলবার রাতে  বিষয়টি নিয়ে ট্যুইটও করেন তিনি। 

আরও পড়ুন: রেকর্ড গড়ে একদিনে সুস্থ হলেন ৪৪ হাজারের বেশি, দেশে করোনা জয়ীর সংখ্যা ১২ লক্ষ ছাড়াল

আরও পড়ুন: করোনা সংক্রমণের মাঝেই প্রবল বৃষ্টিতে বানভাসি মুম্বই, জারি করতে হল লাল সতর্কতা

মুখ্যমন্ত্রীর শরীর-স্বাস্থ্যের কথা ভেবে অনেকেই উদ্বিগ্ন হয়ে ছিলেন। যদিও বিপ্লব দেবের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট শএষপর্যন্ত নেগেটিভ আসে। মন্ত্রী নিজেই ট্যুইটারে সেকথা প্রকাশ করেন।

 

 

 ট্যুইটারে বিপ্লব দেব লেখেন, “আমার কোভিড-১৯ টেস্টের ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। তবে আগামী ৭ দিন সম্পূর্ণ নীতি-নিয়মের মধ্য দিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকবো। বর্তমানে ঘর থেকেই কাজ করবো।“