কেরালার পর এবার মুম্বই-এ করোনা আতঙ্ক। মুম্বই-র ছত্রপতি বিমান বন্দরে একজনের শরীরে করোনা ভাইরাস বাসা বেধেছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। তাই তাকে যাবতীয় পরীক্ষার মধ্য় দিয়ে যেতে হবে। তার সোয়াব পরীক্ষার জন্য় পাঠানোর ব্য়বস্থা করা হচ্ছে।

সূত্রের খবর, চিনের এই মারণ রোগ ভাইরাসে আক্রান্ত কিনা তা পরীক্ষা করতে ইতিমধ্য়েই ১৮ জানুয়ারির পর থেকে মুম্বইয়ের ছত্রপতি শিবাজি মহারাজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৫৯,৬৫৪ জন যাত্রীকে স্ক্রিন করা হয়েছে। সূত্রের খবর, সন্দেহ করা হচ্ছে গত রবিবার স্ক্রিন করা ওই যাত্রী করোনায় আক্রান্ত।এর আগে, করোনার সন্দেহে কোয়ারেনটাইনে রাখার পর মহারাষ্ট্রের হাসপাতাল থেকে ১০৫ জনকে ছেড়ে দেওয়া হয় । শুধুমাত্র চারজনকে পর্যবেক্ষণে রেখে দেওয়া হয়। মুম্বইয়ের একটি হাসপাতালে দুজনকে কোয়ারেনটাইনে রাখা হয়েছে, আর পুনে ও নাসিকের দুটি হাসপাতালে রয়েছেন বাকি দু জন।


অপরদিকে করোনা মোকাবিলা বিমান সংস্থাদেরও ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে। বাতিল করা হচ্ছে একধিক আন্তর্জাতিক বিমান।  সূত্রের খবর, দেশের  বিমান পরিবহণের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ডিজিসিএ অর্থাৎ ডিরেক্টরেট জেনারেল অব সিভিল এভিয়েশন  গত শনিবারই সমস্ত উড়ান সংস্থাকে নির্দেশিকা জারি করেছিল।   চিন বা অন্য় কোনও দেশ থেকে কোনও চিনা নাগরিককে ভারতে ঢুকতে দেওয়া হবে না। এমনকি, চিনে থাকা বিদেশিদের ক্ষেত্রেও আপাতত ভারতে ঢোকার উপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে ভারত থেকে চিনে উড়ান চালানো অযৌক্তিক বলে দাবি করছেন উড়ান সংস্থার কর্তারা।  ট্র্যাভেল ফেডারেশন অব ইন্ডিয়া-র পূর্ব ভারতের চেয়ারম্যান অনিল পঞ্জাবি জানিয়েছেন, এর ফলে ভয়ঙ্কর ক্ষতির মুখে পড়ছে পর্যটন ব্যবসা।