রবিবার, টিকাকরণের দ্বিতীয় দিনে দেশের ৬টি রাজ্যের ৫৫৩টি কেন্দ্রে ১৭ হাজার মানুষকে টিকা প্রদান করা হয়েছে। সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। গত দুদিনে এখনও পর্যন্ত ২লক্ষ ২৪ হাজার মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান হয়েছে। অন্ধ্র প্রদেশ, অরুণাচল প্রদেশ, কর্ণাটক, কেরল, মনিপুর, আর তামিলনাড়ুতে এদিন টিকা প্রদান করা হয়। শনিবার গোটা দেশে ১ লক্ষ ৯১ হাজার মানুষকে টিকা দেওয়া হয় ৩ হাজার ৬টি কেন্দ্রে।
 

রবিবার স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে গত দুদিন ধরে টিকাদানের পর এখনও পর্যন্ত ৪৪৭টি বিরুপ ঘটনা নথিভুক্ত হয়েছে। যা গোটা টিকাদানের তুলনায় নিতান্তই কম। তবে তিন জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল বলেও জানিয়েছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রকের আধিকারিকরা। স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে টিকা নিয়ে অসুস্থ হয়ে যাওয়ার পর যাঁদের এইমসের ভর্তি করা হয়েছিল তাঁদের শারীরিক অবস্থা এখন ভালো রয়েছে। জ্বর, বমি, মাথা ব্যাথা ও গা হাত পায়ে যন্ত্রণার মত সামন্য প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছিল তাঁদের শরীরে। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের শীর্ষ আধিকারিকরা বলেছেন, যে রাজ্যগুলিতে সপ্তাহে চারদিন করোনাভাইরাসের  বিরুদ্ধে টিকা অধিবেশন পরিকল্পনা করবে। বেশ কয়েকটি রাজ্য ইতিমধ্যেই টিকাদানের দিন ঘোষণা করেছে। অন্ধ্র প্রদেশ সপ্তাহে ৬ দিন টিকা দেওয়ার অনুমতি চেয়েছে বলেও জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। 
 

স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে ভারত একদিনে বিশ্বের সবথেকে বেশি টিকা দিয়েছে। আমেরিকা আর ফ্রান্সের থেকেই ভারতে প্রথম দিনে টিকা দানের সংখ্যা অনেক বেশি। স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে প্রথম দুদিনে ২ লক্ষেরও বেশি মানুষকে টিকা প্রদান করা হয়েছে।  কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষ বর্ধন আগামিকাল বিদেশ মন্ত্রকের আধিকারিক ও ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলির কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। মূলত ভ্যাকসিন রফতানি নিয়ে আলোচনা হবে।