সোমবার ভারতের সব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির কাছে মোদী সরকার ভারতের গণ কোভিড টিকা অভিযানের বিষয়ে বিশদ নির্দেশিকা পাঠিয়ে দিল। সেই নির্দেশিকা অনুসারে, প্রতিদিন প্রতিটি সেশনে ১০০ থেকে ২০০ জনকে টিকা দেওয়া হবে। এর আগেই সরকার জানিয়ে দিয়েছিল, টিকাকরণের প্রথম ধাপে স্বাস্থ্যসেবা কর্মী, কোভিড মহামারিতে সামনে থাকা অন্যান্য পরিষেবা কর্মী বা ফ্রন্টলাইনার, ৫০-ঊর্ধ্ব বয়সী এবং কোমরবিডিটি থাকা ৫০ বছরের কম বয়সীদের মিলিয়ে মোট ৩০ কোটি নাগরিককে টিকা দেওয়া হবে।

এদিন সরকার জানিয়েছে, সব মিলিয়ে ২০টি মন্ত্রক এই পুরো টিকাকরণ প্রক্রিয়াটি পরিচালনা করবে। টিকাকরণের একেকটি দলে পাঁচজন করে সদস্য থাকবে। টিক দেওয়ার পর, তার কোনও প্রতিকূল প্রতিক্রিয়া হচ্ছে কিনা তা দেখার জন্য প্রত্যেককে ৩০ মিনিট করে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। প্রতি সেশনে ১০০ জন করে নাগরিককে টিকা দেওয়া হবে। যদি কোথাও, ভিড় সামলানো, অপেক্ষা করার জায়গা, পর্যবেক্ষণের জায়গার মতো পর্যাপ্ত সুবিধা এবং জায়গা উপলব্ধ থাকে, তাহলে সেইসব জায়গায় একেক সেশনে ২০০ জনকেও টিকা দেওয়া হবে। তার জন্য আরও একজন অতিরিক্ত ভ্যাকসিনেটর অফিসার নিযুক্ত করা হবে।

কেন্দ্রের গাইডলাইন অনুসারে, কোভিড ভ্যাকসিন ইন্টেলিজেন্স নেটওয়ার্ক বা কো-উইন নামে একটি ডিজিটালাইজড প্ল্যাটফর্ম-এর মাধ্যমে টিকাকরণের জন্য নাম নথিভুক্ত করা হবে এবং কাদের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়ে গেল তা রিয়েল-টাইম ভিত্তিতে চিহ্নিত করা লহবে। কো-ইউন সিস্টেমে নাম নথিভুক্ত করার জন্য ভোটার আই কার্ড, আধার কার্ড, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স, পেনশনের নথির মতো ১২টি পরিচয়পত্রের যে কোনও একটি লাগবে। কোভিড টিকাকরণ কেন্দ্রে শুধুমাত্র প্রাক-নিবন্ধিত ব্যক্তিদেরই টিকা দেওয়া হবে। অন স্পট নিবন্ধকরণে কোনও ব্যবস্থা থাকবে না।