আরপিএফ জওয়ান। আহত হয়েছেন ৭ নিরাপত্তারক্ষী। গতকাল যে হান্দোয়ারায় হামলা চালিয়েছিল জঙ্গিরা সোমবারই সেই এলাকাতেই নিরাপত্তারক্ষীদের ওপর হামলা চালান হয়। স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছেন হান্দোয়ারায়  সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স (সিআরপিএফ) টহল দিচ্ছিল। সঙ্গে ছিল বেশ কয়েকটি পোট্রোল গাড়ি। সেই সময় জঙ্গিরা প্রথম তাদের গাড়ি লক্ষ্য করে হামলা চালায়। 

 

রবিবারই হান্দোয়ারায় জঙ্গিদের সঙ্গে গুলির লড়াইয়ে ৫ ভারতীয় নিরাপত্তারক্ষী শহিদ হয়েছিলেন। নিহতের তালিকায় ছিলেন এক কর্নেল ও এক মেজর। কিন্তু তার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই এই হামলার পর রীতিমত আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে গোটা এলাকায়। শ্রীনগর থেকে প্রায় ৭০ কিলোমিটার উত্তরে কুপওয়ারা জেলা। এই জেলারই অন্তর্গত হান্দোয়ারা। জঙ্গিদের হাত থেকে পণবন্দি স্থানীয় বাসিন্দাদের উদ্ধার করতে গিয়েই গুলির লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়ে ভারতীয় জওয়ানরা। রবিবার সেনা ও জম্মু কাশ্মীর পুলিশের যৌথ আক্রমণে দুই জঙ্গিও নিকেশ হয়েছিল। 

স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে সোমবার সিআরপিএফ-এর পেট্রোল লক্ষ্য করেই হামলা চালায় জঙ্গিরা। সিআরপিএফ-এর কনভয় লক্ষ্য করেই তুমুল গুলি বর্ষণ করা হয়। পাল্টা হামলা চালায় সিআরপিএফ জওয়ানরা। দীর্ঘক্ষণ এনকাউন্টার চলে বলেও জানান হয়েছে প্রশাসনের তরফ থেকে। ওই এলাকায় কজন জঙ্গি লুকিয়ে রয়েছে তা এখনও স্পষ্ট নয়।  তবে এদিন বিকেল ৪টে নাগাদ পাকিস্তান সীমান্ত চুক্তি লঙ্গন করে সীমান্ত গুলি বর্ষণ করে। তখন কোনও অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটেছে কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়। সব দিকই খতিয়ে দেখা হচ্ছে।