একজন দলিত যুবককে চার জন মিলে লোহার রড ও লঠি দিয়ে মারা অভিযোগ উঠল। কয়েকঘণ্টা ধরে মারার পর কষ্টে যুবকটি জলের জন্য আবেদকন করেন। কিন্তু  তারা জল দিতে অস্বীকার করে। তারা জোর  করে ওই দলিত যুবককে নিজেদের মূত্র খাওয়ায়। এমন নৃশংস ঘটনা ঘটেছে পঞ্জাবের সংরুরপুর এলাকায়। ওই চার অভিযুক্তের বিরুদ্ধে পঞ্জাবের মুলাক থাানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। 

মুনাকের ডেপুটি সুপারিটেনডেন্ট অফ পুলিশ  বুটা সিং জানিয়েছেন, লেহরার চাঙ্গলিওলা গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে। ৭ নভেম্বর জগমেল সিং নামের ৩৭ বছরের দলিত দুই যুবককে ঘর থেকে বের করে আনে দুই যুবক। তিনি জানিয়েছেন, অভিযুক্তদের চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে। অভিযুক্তরা হল রিঙ্কু, অমরজিৎ সিং, লাকি এবং বিটা।  দলিত যুবকের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে। তবে এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।  পুলিশের অভিযোগে জানানো হয়েছে, ২১ সেপ্টেম্বর রিঙ্কুর সঙ্গে  একটি বিবাদে  জড়িয়ে পড়েছিলেন জগমেল নমের ওই যুবক। 

৭ নভেম্বর সকাল নটা নাগাদ  নিজের বাড়ি থেকে জগমেলকে তুলে আনেন রিঙ্কু ও বিটা।  প্রথমে রিঙ্কুর বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আগে থেকেই অমরজিৎ উপস্থিত ছিল।  এরপরেই চারজন মিলে তাকে মারতে থাকে। সেই সময় জগমেল দেওয়াল ধরে সোজা হয়ে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন। অভিযোগে জগমেল জানিয়েছে, লাঠি ও লোহার রড দিয়ে তাঁকে মারা হয়েছে। তাদের মূত্র জোর করে পান করতে জগমেলকে বাধ্য করা হয়েছে বলেও তিনি অভিযোগ করেছেন।