এদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা এখনও পর্যন্ত ২। কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে  প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে কর্ণাটকে। গত সপ্তাহেই  মৃত্যু হয়েছিল ৭৬ বছরের এক বৃদ্ধের। এবার তাঁর মেয়ের শরীরের মিলল এই মারণ ভাইরাস। 

কর্ণাটকের  স্বাস্থ্য শিক্ষামন্ত্রী ডক্টর কে সুধাকর জানান, করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হওয়া বৃদ্ধের কন্যার শরীরেও বাসা বেঁধেছে মারণ ভাইরাস।  স্বাস্থ্যসচিব জাভেদ আখতার জানিয়েছেন বৃদ্ধের ৪৬ বছরের মেয়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। 

আরও পড়ুন: ভারতে কামাল দেখাল সোয়াইন ফ্লু-ম্যালেরিয়া- এইচআইভির মেডিসিন, করোনাকে জিতে ফিরলেন ৩

মৃত্যুর ১০ দিন আগে সৌদি আরব থেকে ফিরেছিলেন কর্ণাটকের গুলবার্গের বাসিন্দা ওই বৃদ্ধ। মৃত্যুর একদিন পর জানা যায় তাঁর শরীরে করোনা সংক্রমণ ঘটেছে। বৃদ্ধের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাঁর পরিবারের একাধিক সদস্য। যদিও মেয়ে ছাড়া আর কারও  শরীরে এই সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। 

মহিলার স্বামী, তাঁর ভাই এবং ভগ্নিপতির পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে। বৃদ্ধকে চিকিৎসার জন্য হায়দরাবাদ নিয়ে গিয়েছিলেন মেয়ে। বাবার সঙ্গে সঙ্গে ছিলেন কন্যা। সেই কারণেই পরিবারের একমাত্র সদস্য হিসাবে বৃদ্ধার মেয়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে।  ওই মহিলার এক মাসের শিশু সন্তানের পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসেনি বলে জানিয়েছে কর্ণাটকের স্বাস্থ্যমন্ত্রক। 

আরও পড়ুন: ইউরোপে ইতালির পর ফ্রান্সেও করোনার ভয়াল থাবা, আতঙ্কে লকডাউন গোটা স্পেনে

৭৬ বছরের ওই বৃদ্ধ গত ২৯ জানুয়ারি সৌদি আরবে যান। গত ২৯ ফেব্রুয়ারি হায়দরাবাদ হয়ে কালবার্গিতে ফেরেন তিনি। গত ৬ মার্চ তার শরীরে জ্বর ও সর্দি-কাশি দেখা দেয়। এরপর ৮ মার্চ তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়। সেখান থেকে চিকিৎসকের পরামর্শে তাঁকে হায়দরবাদে নিয়ে যাওয়া হয়।