শনিবার রাতে ও রবিবার সকালে দিল্লির  দূষণের ভয়াবহ পরিস্থির সৃষ্টি হয়েছে।  রবিবার সকালে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সের লেভেন ৪০০ ওপর চলে গিয়েছে।  দিল্লির বায়ুদূষণ দপ্তরের থেকে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।  গত দুই দিনের দিল্লির বায়ুদূষণের মাত্রা রবিবার সকালে সব থেকে খারাপ ছিল। দিল্লি ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকায় জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। 

শনিবার রাত আটটার সময় দিল্লির এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সের সূচক ছিল ৪০২। রবিবার ভোর সাড়ে পাঁচটা নাগাদ সেই সূচক পৌঁছায় ৪৪৭।  দিল্লি ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকায় সমস্ত স্কুল বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বন্ধ রাখা হয়েছে সমস্ত ধরণের নির্মীয়মাণ কাজ।  দিল্লিতে সামান্য বৃষ্টিপাতের ফলে পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। এত ঘন ধোঁয়াশার সৃষ্টি হয়েছে, শহরটাকে ঠিক করে দেখাও যাচ্ছে না।  দিল্লির আনন্দ বিহারে বায়ুদূষণের পরিমাণ সব থেকে বেশি। এখানে এয়ার কোয়ালিটির সূচক গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৪৭৮।  আলিপুরের  এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সের সূচক রয়েছে ৪৬৩। রবিবার সকালে বিহারের বেশিরভাগ জায়গায় এয়ার কোয়ালিটির ইনডেক্সের সূচর ৪৫০ এর আশেপাশে ঘোরাঘুরি করছে। 

দিল্লির বায়ুদূষণ নিরক্ষণ বিভাগের তরফে জানানো হয়েছে, শুক্রবার পরিস্থিতির হাল কিছুটা ফিরেছিল। বায়ুদূষণের পরিমাণ ৪৪ শতাংশ কমে গিয়েছিল। কিন্তু শনিবার থেকে পরিস্থিতি আরও বিগড়াতে থাকে। শনিবার দিল্লির বায়ু দূষণের পরিমাণ আবার ১৭ শতাংশ বেড়ে যায়। শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট জনস্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা দিল্লিতে জারি করেন।  বায়ু দূষণের কথা মাথায় রেখে দিল্লিতে যে কোনও ধরণের নির্মীয়মাণ কাজ সন্ধে ছটা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল ২ নভেম্বর পর্যন্ত। তবে নির্মীয়মাণ কাজ বন্ধ রাখার সময়সীমা আরও বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।