গোটা গাঁধী পরিবারের নামেই জয়ধ্বনি দিচ্ছিলেন তিনি। আর তা করতে গিয়েই বিপত্তি বাঁধিয়ে ফেললেন। সোনিয়া, রাহুলের পরে প্রিয়ঙ্কা গাঁধীর নাম বলতে গিয়ে মুখ ফস্কে বলে ফেললেন অভিনেত্রী প্রিয়ঙ্কা চোপড়ার নাম!

প্রকাশ্য জনসভায় মুখ ফস্কে এমনই ভুল করে এখন সোশ্যাল মিডিয়ার ট্রোলের শিকার হচ্ছেন দিল্লিতে কংগ্রেসের প্রাক্তন বিধায়ক সুরেন্দ্র কুমার। বিধায়কের কীর্তিতে সভায় উপস্থিত কংগ্রেস নেতারাও যারপরনাই বিরক্ত হন। 

সোমবার দিল্লিতে কংগ্রেসের একটি সভা ছিল। সেখানেই বক্তব্য রাখছিলেন সুরেন্দ্র। বক্তব্যের শেষ দিকে তিনি দলের প্রধান তিন নেতা নেত্রীর নামে স্লোগান দিতে থাকেন। আর তাঁর সঙ্গে গলা মেলাতে থাকেন সভায় উপস্থিত কংগ্রেস সমর্থকরা। কংগ্রেস পার্টি জিন্দাবাদ, সোনিয়া গাঁধী জিন্দাবাদ, রাহুল গাঁধী জিন্দাবাদ পর্যন্ত ঠিকই ছিল। কিন্তু প্রিয়ঙ্কা গাঁধীর নাম নিতে গিয়েই প্রিয়ঙ্কা চোপড়া বলে বসেন ওই কংগ্রেস নেতা।  তাঁর এই কাণ্ডে সভায় উপস্থিত কংগ্রেস নেতা, কর্মীরাও হেসে ফেলেন। 

 

 

সুরেন্দ্র যখন এই কাণ্ড ঘটাচ্ছেন, তখন মঞ্চে তাঁর পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন দিল্লির কংগ্রেস সভাপতি সুভাষ চোপড়া। প্রিয়ঙ্কার চোপড়ার নাম শুনেই চমকে গিয়ে তিনি সুরেন্দ্রর দিকে তাকান। সুভাষ চোপড়াই সুরেন্দ্রকে সতর্ক করে দেন। ভুল সামলে নিয়ে ফের প্রিয়ঙ্কা গাঁধীর নামে স্লোগান দেন প্রাক্তন কংগ্রেস বিধায়ক। 

কংগ্রেস নেতার এই কীর্তি নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হতে বেশি সময় লাগেনি। তাঁর এই কাণ্ডে রীতিমতো হাসির রোল উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। কংগ্রেস নেতাকে খোঁচা দিতে ছাড়েননি অন্যান্য দলের নেতারাও। অকালি দলের বিধায়ক মনজিন্দর সিং সিরসা টুইটারে লেখেন, 'কংগ্রেসের মিছিলে প্রিয়ঙ্কা চোপড়ার নামে স্লোগান উঠছে। মনে হচ্ছে গোটা দলটাই 'পাপ্পু' হয়ে গিয়েছে।' কেউ কেউ মজা করে বলছেন, অভিনেত্রী প্রিয়ঙ্কা চোপড়ার ভক্ত বলেই হয়তো মুখ ফস্কে তাঁর নাম বলে ফেলেছেন সুরেন্দ্র!