এফআইআর-এ নাম থাকা কৃষক নেতাদের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার লুকআউট নোটিশ জারি করল দিল্লি পুলিশ। সেইসঙ্গে তারা যাতে দেশত্যাগ না করতে পারে তা নিশ্চিত করতে তাদের পাসপোর্ট সমর্পণ করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। সংবাদসংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সভাপতিত্বে এক পর্যালোচনা বৈঠকের পরই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

কৃষকদের ট্র্যাক্টর সমাবেশ নিয়ে দিল্লি পুলিশ যে নো অবজেকশন সার্টিফিকেট দিয়েছিল, তা লঙ্ঘনের অভিযোগে বুধবারই রাকেশ টিকাইত, দর্শন পাল, রাজিন্দর সিং, বলবীর সিং রাজেওয়াল, বুটা সিং বুর্জগিল, যোগেন্দ্র যাদব, মেধা পাটেকর এবং যোগিন্দর সিং উগ্রাহা সহ মোট ৩৭ জন কৃষক নেতার নামে এফআইআর দায়ের করা হয়েছিল। এফআইআর-এ হত্যার চেষ্টা, দাঙ্গা করা এবং সরকারী কর্মচারীকে দায়িত্ব পালনে বাধা দেওয়ার মতো ভারতীয় দণ্ডবিধির (IPC) বেশ কয়েকটি ধারার উল্লেখ করা হয়েছে।

জানা গিয়েছে, ২৪ ঘন্টা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। কৃষক নেতাদের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক বক্তৃতা দেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে। তার জন্যই জাতীয় রাজধানীতে হিংসাত্মক ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করছে দিল্লি পুলিশ। এই হামলায় ৩০০-রও বেশি পুলিশ কর্মী আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আরও পড়ুন - রাম মন্দির আন্দোলনে যুক্ত হলেন শুভেন্দু, লক্ষাধিক টাকার অনুদান তুলে দিলেন VHP-র হাতে

আরও পড়ুন - মমতা-র লক্ষ্য 'গ্রেটার বাংলাদেশ' গঠন, তিন ছবি তুলে ধরে গুরুতর অভিযোগ দিলীপ ঘোষের

আরও পড়ুন - ভ্যাকসিনের মাঠে চিনকে গোল দিচ্ছে মোদীর 'প্রতিবেশি প্রথম' নীতি, টিকা গেল শ্রীলঙ্কা-বাহারিন

গত মঙ্গলবার, প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন দিল্লির জাতীয় রাজধানী এলাকায় কয়েক হাজার কৃষক পুলিশের তৈরি ব্যারিকেড ভেঙে ট্র্যাক্টর মিছিল নিয়ে এগিয়ে গিয়েছিলেন। তৈরহি হয় অভূতপূর্ব নৈরাজ্যের পরিবেশ। আন্দোলনকারীদের একাংশকে একদিকে তরোয়াল, রড এবং লাঠি নিয়ে পুলিশকর্মীদের আক্রমণ করতে দেখা গিয়েছে, অন্যদিকে লালকেল্লার উপর একটি ধর্মীয় পতাকা তুলতেও দেখা গিয়েছে।