বিগত কয়েকদিনে দেশের একাধিক রাজ্যে ভারী থেকে অতি ভারী বৃ্ষ্টির ফলে বিপর্যস্ত হয়েছে সাধারণ জনজীবন। প্রবল বর্ষণের ফলে জারি হওয়া বন্যা পরিস্থিতিতে দিল্লি, হিমাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, পঞ্জাব-এ ইতিমধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ২৮ জন। ২২ জনের নিখোঁজের খবর পাওয়া গিয়েছে। 

যমুনা-সহ  একাধিক নদী বিপদ সীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার কারণে দিল্লি, হরিয়ানা, পঞ্জাব ও উত্তরপ্রদেশে আগে থেকে বন্যার সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। হাতিনী কুঁদ বাঁধ থেকে ৮.১৪ কিউসেক জল ছাড়ার পর হরিয়ানা সরকারের তরফে সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার আবেদন জানানো হয়েছিল। 

সেইসঙ্গে উত্তরাখণ্ডে ফের মেঘ ভাঙা বৃষ্টির জের। উত্তরাখণ্ডের উত্তরকাশির মোরি তেনসিল-এ মেঘভাঙা বৃষ্টির জেরে লন্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছে গোটা এলাকা। মেগভাঙা বৃষ্টির কারণে এখনও পর্যন্ত তিন জনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। ঘটনাস্থলে গিয়ে উপস্থিত হয়েছেন উদ্ধারকারী দল। এখনও চলছে উদ্ধারকাজ। উত্তরাখণ্ডে আচমকা এই মেঘ ভাঙা বৃষ্টির জেরে নিখোঁজ অন্তত ২২ জন, তাঁদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে উদ্ধারকারীরা। 

 

পাশাপাশি হিমাচল প্রদেশে প্রবল বৃষ্টিপাতের জেরে দু'জন নেপালি-সহ কমপক্ষে ২২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। সেইসঙ্গে আহত হয়েছেন প্রায় ৯ জন। পঞ্জাবেও তিনজবনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। রাজ্যে সতর্কতা জারি করেছে প্রশাসন।