তহসিল অফিসের সকলে অবাক। অবাক আইনজীবীরা। কেউ কেউ ভেবেছিলেন বয়সের ভারে হয়তো মহিলা ভুল বকছেন। আসলে তাঁর দাবিটাই ছিল চমকে দেওয়ার মতো। তাঁর নামে থাকা সমস্ত জমি লিখে দিতে চান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নামে। অফিসাররা তাঁকে বোঝানোর পরও তিনি নিজের সিদ্ধান্তে অনড়। আসলে এর পিছনে রয়েছে এক মর্মান্তিক কাহিনি।

উত্তরপ্রদেশের মৈনপুরি জেলার কিশনি ব্লকের চিতায়ান নামে এক গ্রামে থাকেন বিত্তন দেবী। বয়স এখন ৮৫। জানা গিয়েছে বুধবার বিকেলে তিনি কিশনি ব্লকের তহসিল অফিসে পৌঁছে আইনজীবীদের কাছে ওই অবাক করা প্রস্তাব রেখেছিলেন। তিনি জানান, তাঁর সাড়ে বারো বিঘা জমি রয়েছে। এর সবটাই তিনি পরধানমন্ত্রীর নামে লিখে দিতে চান। বৃদ্ধা বিত্তন দেবীর দুই ছেলেও রয়েছে। আইনজীবীরা তাঁকে পরামর্শ দিয়েছিলেন, ওই জমি ছেলেদের নামে লিখে দিতে। কিন্তু, সেই পরামর্শ মানেননি বৃদ্ধা।

তিনি জানান, বেশ কয়েক বছর হল তাঁর স্বামী পুরাণ লাল মারা গিয়েছেন। তাঁর দুই ছেলে এবং পুত্রবধুরা তাঁর এতটুকু যত্ন করে না। তিনি বেঁচতে আছেন ভারত সরকারের কাথ থেকে পাওয়া বার্ধক্য পেনশনের জোরে। এই অবস্থায় তিনি মনে করছেন, তাঁর পুত্ররা নন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীই তাঁর দেখভাল করছেন। তাই নরেনদ্র মোদীর নামেই তিনি নিজের সব জমি লিখে দিতে চান।

বৃদ্ধার সব কথা শুনে আইনজীবীরা তাঁকে আর কিছু বলতে পারেননি। তবু, যদি তাঁর মন পরিবর্তন হয়, সেই কথা বিবেচনা করে বিত্তন দেবীকে দিন দুয়েক পরে ফের আসার জন্য বলে, বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা জানিয়েছেন, ওই মহিলার দেখভালের বিষয়ে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে তাঁরা কথা বলবেন।