এনসেফালাইটিসের জেরে বিহারের মুজঃফরপুরে লাফিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। সেই মৃত্যু মিছিল এখনও অব্যাহত। গত তিন সপ্তাহ ধরে এখনও পর্যন্ত প্রায় ৪৫ শিশুর মৃত্যু হয়েছে, এর মধ্যে ৭০ শতাংশই শিশুকন্যা। জানা গিয়েছে এদের বেশিরভাগেরই বয়স দশ বছরের মধ্যে।  

এই মৃত্যু মিছিল কোথায় গিয়ে শেষ হবে তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। শুধু তাউই নয়, এই পরিস্থিতিতে প্রশাসনের গাফিলতির অভিযোগও উঠে আসছে। সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে, হাইপোগ্লাইসেমিয়ার কারণেই এই রোগ হয়েছে। মুজফফরপুরের শ্রী কৃষ্ণ মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হসপিটালের সুপারিন্টেন্ডেন্ট-এর কথায় রক্তে ব্লাড সুগার লেভেল কম থাকার জন্যই মুলত এই রোগের সূত্রপাত। তিনি এনসেফালাইটিস-এর মৃত্যু ঘটনাকে অস্বীকার করেছেন। 

তবে এই মন্তব্যের বিরোধীতা করেছেন চিকিৎসক মহল। তাঁদের কথায় প্রশাসনের গাফিলতি লুকোতেই এই ধরণের কথা বলছে সরকার। এই মুহূর্তে বিহারের শ্রীকৃষ্ণ মেডিকেল কলেজ ও কেজরিওয়াল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে প্রায় শতাধীক শিশু। বুধবার কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে পাঁচ সদস্যের একটি দল গঠন করা হয়, যাঁরা মুজঃফরপুরের শিশু মৃত্যুর সঠিক কারণ খতিয়ে দেখতে যান। 

এই প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য বিভাগ একটি নির্দেশিকা জারি করেছে যে শিশুদের বেশিক্ষণ বাইরের কড়া রোদে যেন খেলতে না দেওয়া হয়। অ্যাকিউট এনসেফালাইটিস সিনড্রোমের ক্ষেত্রে যে লক্ষণগুলি চোখে পড়ে তা হল প্রচন্ড জ্বর এবং মস্তিষ্কের প্রদাহ।