নিজের পুত্রবধুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল প্রাক্তন বিজেপি বিধায়কের বিরুদ্ধে। সূত্রের খবর, বিজেপির প্রাক্তন বিধায়ক মনোজ সোকিন-এর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি তার পুত্রবধুকে হুমকি দিয়ে এবং  বন্ধুকের নলের সামনে রেখে ধর্ষণ করেছেন। 

ঘটনাটি অবশ্য আজকের নয়। সূত্রের খবর, এক বছর আগে অর্থাৎ, ২০১৮ সালেন ৩১ ডিসেম্বরে এই ঘটনা ঘটিয়েছিলেন তিনি। ঘটনাটি প্রকাশ্যে এল এতদিন পর কারণ দুর্ঘটনার শিকার ওই মহিলা বৃহস্পতিবার দিন নাঙ্গলোই বিধানসভার দু'বারের প্রাক্তন বিধায়ক মনোজ সোকিন-এর বিরুদ্ধে থানায় এসে একটি এফআইআর দায়ের করেন। 

পুলিশ জানিয়েছে, অভিযোগকারীর অভিযোগের ভিত্তিতে ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর রাতে তাঁর স্বামী, ভাই আর এক তুতো বোনকে নিয়ে নিজের বাড়ি থেকে মীরা বাগে শ্বশুর বাড়ি যাবেন বলে রওনা দেন তিনি। কিন্তু শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার পরিবর্তে তাঁর স্বামী তাঁদের নিয়ে যান পশ্চিম বিহারের একটি বিলাসবহুল হোটেলে। অভিযোগকারীর কথায়, তাঁরা হোটেলে পৌঁছে দেখেন, সেখানে আগে থেকেই এসে উপস্থিত হয়েছেন তাঁর শ্বশুর বাড়ির লোকেরা। নতুন বছর উদযাপনের আনন্দে মেতে ছিলেন তাঁরা। অনেক রাত পর্যন্ত পার্টির পর রাত সাড়ে বারটা নাগাদ তিনি ফিরে যান শ্বশুর বাড়িতে। সঙ্গে যান তাঁর স্বামীও। কিন্তু তাঁকে বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে বন্ধুদের নিয়ে বেরিয়ে গেলে ঘুমিয়ে পড়েন। 

অভিযোগ,এরপর রাত দেড়টা নাগাদ হঠাৎ তাঁর দরজায় ধাক্কা দেন তাঁর শ্বশুর মনোজ সোকিন। তাঁর সঙ্গে জরুরি কথা রয়েছে বলে পুত্রবধূকে ঘরের দরজা খুলতে বলেন মনোজ। এরপর দরজা খুলে দিলে ঘরে ঢুকে তাঁর সঙ্গে অশালীন আচরণ করতে শুরু  করেন মনোজ সোকিন। মদ্য়প মনোজ-কে ঘরে যাওয়ার কথা বলায় আচমকাই পকেট থেকে পিস্তল বের করে অভিযোগকারীর মাথায় ঠেকান তিনি, এবং তার কথা না শুনলে তাঁকে ও তাঁর ভাইকে খুন করে ফেলার হুমকিও দেন তিনি। আর এরপর তাঁকে ধর্ষণ করেন। 

নিজের বিয়ে টেকাতে এবং নিজের ভাইয়ের জীবন বাঁচাতে এতদিন ধরে মুখ বন্ধ করে ছিলেন তিনি। প্রসঙ্গত ২০১৮ সালে বিয়ের পরপরই তাঁর শ্বশুরবড়ির বিরুদ্ধে গার্হস্থ্য হিংসার অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। পুলিশ সূত্রে খবর, অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতীয় দণ্ডবিধি ৩৭৬ এবং ৫০৬ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে । ঘটনার তদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।