সাধারণতন্ত্র দিবসে কৃষকদের ট্র্যাক্টর মিছিল ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে গিয়েছিল রাজধানীর রাজপথ। হিংসার আঁচ পৌঁছে গিয়েছিল লালকেল্লাতেও।এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্রমে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে জাতীয় রাজনীতি। শাসক বিরোধী দুই পক্ষই একে অপরকে নিশানা করতে পিছপা হচ্ছে না। এই পরিস্থিতিতে কংগ্রেস নেত্রী অলকা লাম্বার একটি  সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট ঘিরে বিতর্ক আরও জোরালো হয়েছে। যেখানে কংগ্রেস নেত্রী কৃষকদের মিছিলে একটি দুর্ঘটনার জন্য তিনি কেন্দ্রের শাসকদল বিজেপি ও স্থানীয় প্রশাসনকে দায়ি করেছেন। অলকা লাম্বা ভিডিওটি পোস্ট করার পরই প্রচুর মানুষ সেটি দেখেন। অনেকেই জানিয়েছেন ভিডিও নিয়ে কংগ্রেস নেত্রী দাবি পুরোপুরি সত্যি নয়। 

অলকা লাম্বার দাবি 
প্রথম থেকে কৃষি বিলের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে আসছেন কংগ্রেস নেত্রী অলকা লাম্বা। একই সঙ্গে তিনি একাধিকবার পাশে দাঁড়িয়েছে আন্দোলনকারী কৃষকদেরও। গত ২৯ জানুয়ারি দুপুরে অলকা লাম্বা এই ভিডিওটি পোস্ট করেন নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে। আর সেখানে হিন্দিতে তিনি লেখেন, হে রাম, বিক্ষোভ ধীরে ধীরে বাড়ছে। বয়স্ক মহিলা যারা আন্দোলনে আংশ নিতে এসেছে তাদের বিজেপি কর্মীরা ধমক দিচ্ছে। কোনও মিডিয়া কী বিজেপির বিরোধিতা করে এই ছবি দেখাবে? বিজেপি নেতাদের জিজ্ঞাসা করা উচিৎ তারা কী অপ্রস্তুত হয়ে পড়েছেন না?

কড়া হাতে আন্দোলন দমনের পথে পুলিশ, গাজিপুর সীমানা খালি করার নির্দেশ, রাজদীপদের বিরুদ্ধে FIR ...

কেন্দ্রীয় বাজেট ২০২১ঃ দেশের অর্থনীতি চাঙ্গা করতে যে ৭টি ক্ষেত্রে জোর দিতে পারেন অর্থমন্ত্রী ...

এই ক্যাপসানের সঙ্গে অলকা লাম্বা যে ভিডিওটি পোস্ট করেন সেটিতে দেখা যাচ্ছে, ২৬ জানুয়ারি সাধারণতন্ত্র দিবসে ট্র্যাক্টর ব়্যালির সময়, একটি ট্র্যাক্টর বেশ কয়েকজন বয়েস্কো মহিলাকে চাপা দিয়ে চলে যাচ্ছে। ভিডিওটি তিনি যেখান থেকে পেয়েছিলেন সেখান থেকে বার্তাটিও কপি পেস্ট করে পোস্ট করেন। একই সঙ্গে মোদী সরকার ও দিল্লি পুলিশকে দায়ি করেন। 

ফ্যাক্ট চেক
কংগ্রেস নেত্রী অলকা লাম্বার দাবি খতিয়ে দেখা হয়েছে। কিন্তু তাতেই স্পষ্ট হচ্ছে যে ভিডিওটি নিছকই একটি দুর্ঘটনার ছবি। আর সেই ঘটনার সঙ্গে দিল্লি পুলিশ ও মোদী সরকারের কোনও রকম যোগাযোগ নেই। কংগ্রেস নেত্রী স্পূর্ণ মিথ্যা দাবি করছেন। অলকা লাম্বার পোস্টটি রিট্যুইট করে এক ব্যক্তি জানিয়েছেন এই দুর্ঘটনাটি গত ২৬ জানুয়ারি ট্র্যাক্টর ব়্যালির সময় হয়েছিল। কিন্তু এই দুর্ঘটনার সঙ্গে দিল্লি পুলিশ বা সরকারের কোনও রকম সম্পর্ক নেই। 

অরম উজালা নামের একটি হিন্দি সংবাদ মাধ্যম এই খবরটি করেছিল। যেখানে বলা হয়েছিল পঞ্জাবের অমৃতসরে একটি বড় দুর্ঘটনা ঘটেছিল। ট্র্যাক্টর মিছিলে যোগদিতে যাওয়ার সময় ট্র্যাক্টরে পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় দুই মহিলার আহত হয়েছেন ৫ জন। পুলিশ পুরো ঘটনাটি কতিয়ে দেখছে। তবে দুর্ঘটনার পরই স্থানীয়রাই ট্র্যাক্টর চালককে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে। দৈনিক জাগরণ ও সংবাদ সংস্থা এএনআই এই খবরটি করেছে। সেখানে বলা হয়েছে দুর্ঘটনাটি দিল্লিতে নয় হয়েছিল পঞ্জাবে। 

সত্যি ঘটনা হল 
কংগ্রেস নেত্রী অলকা লাম্বা পঞ্জাবের দুর্ঘটনার ভিডিও শেয়ার করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে তিনি কেন্দ্রীয় সরকারকে কৃষক আন্দোলন দমনের জন্য দায়ি করেছেন। যদিও ২৬ জানুয়ারি এই দুর্ঘটনা ঘটেছিল। কিন্তু সেটি পঞ্জবে। তবে এজাতীয় জাল ভিডিও শেয়া করে ইতিমধ্যেই বিপাকে পড়েছেন বেশ কয়েক জন সাংবাদিক ও বিরোধী রাজনৈতিক দলের প্রধান।