হামলা হতে পারে। এই আশঙ্কায় সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতিকে চিঠি পাঠিয়েছিল উন্নাওয়ের নির্যাতিতার পরিবার। তার দিন কয়েকের মধ্যেই নির্যাতিতার গাড়িতে ধাক্কা মারল লরি। যার জেরে এখন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন নির্যাতিতা। তার পরই এই চিঠির কথা সামনে এসেছে। 

রবিবার উন্নাও ধর্ষণ কাণ্ডে নির্যাতিতার গাড়িতে রায়বরেলিতে একটি ট্রাক সজোরে ধাক্কা মারে। এর ফলে গুরুতর আহত হন ওই নির্যাতিতা এবং তাঁর আইনজীবী। মৃত্যু হয় নির্যাতিতার দুই আত্মীয়ার। তাঁদের মধ্যে একজন ধর্ষণ কাণ্ডে অন্যতম সাক্ষী ছিলেন। 

আরও পড়ুন- ভেন্টিলেশনে উন্নাওয়ের নির্যাতিতা, খুনের চক্রান্তের তদন্তে এবার সিবিআই

এই ঘটনার পরেই নির্যাতিতার পরিবার অভিযোগ তোলে, নির্যাতিতাকে ধর্ষণে অভিযুক্ত বিজেপি বিধায়ক কুলদীপ সেঙ্গারই চক্রান্ত করে এই দুর্ঘটনা ঘটিয়েছেন। আপাতত জেলে বন্দি রয়েছেন সেঙ্গার। কিন্তু নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগ, জেলে থেকেই নিজের ভাই এবং অনুগামীদের মাধ্যমে নিয়মিত ওই নির্যাতিতা এবং তাঁর পরিবারকে হুমকি দিচ্ছিলেন বিজেপি বিধায়ক। 

অভিযোগ, গত ৭ এবং ৮ জুলাই কুলদীপ সেঙ্গারের ভাই মনোজ সিং এবং তার এক সহকারী এসে নির্যাতিতার পরিবারকে হুমকি দিয়ে গিয়েছিল। তারা জানিয়েছিল, বিজেপি বিধায়কের বিরুদ্ধে নির্যাতিতা ধর্ষণের অভিযোগ প্রত্যাহার না করলে তার পরিণতি ভাল হবে না। 

এর পরেই সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতিকে গোটা ঘটনা জানিয়ে চিঠি দিয়েছিলেন নির্যাতিতার মা এবং পরিবারের অন্য এক সদস্য। সেখানে নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন তাঁরা। বার বারই পুলিশ, প্রশাসনকেও একই অভিযোগ জানানো হয়েছে। 

এর পরে নির্যাতিতার নিরাপত্তায় সর্বক্ষণের নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করা হয়েছিল। যদিও, দুর্ঘটনার সময় তাঁরা নির্যাতিতার সঙ্গে ছিলেন না। 

এ দিকে এই ঘটনা নিয়ে এ দিন লোকসভায় বিক্ষোভ দেখান বিরোধীরা। কংগ্রেস, সমাজবাদী পার্টি থেকে শুরু করে তৃণমূল, ঘটনার যথাযথ তদন্তের দাবিতে সরব হয়। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে অবশ্য দাবি করা হয়েছে, ঘটনায় নিরেপক্ষ তদন্ত করার জন্যই ইতিমধ্যেই সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।