করোনা মহামারির মধ্যে স্বল্প সময়ের জন্য বসেছে সংসদ। তাই এরমধ্যেই বিল পাস করিয়ে নিতে মরিয়া কেন্দ্রী। কিন্তু রবিবার কৃষি বিল পাস করাতে গিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে  নজিরবিহীন বিক্ষোভ দেখল রাজ্যসভা। কৃষি বিল নিয়ে বিক্ষোভের জেরে সোমবার তৃণমূলের ডেরেক ও’ব্রায়েন-সহ রাজ্যসভার আট জন সাংসদকে সাসপেন্ড করা হয়। তারপরও অবশ্য এদিন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডুর নির্দেশ উপেক্ষা করেই অধিবেশন কক্ষে পৌঁছন  সাসপেন্ড সাংসদেরা। এমনকি, সভাকক্ষ ত্যাগ করতেও রাজি হননি তাঁরা। ফলে সোমবারও কৃষি বিল নিয়ে  ফের উত্তেজনা তৈরি হয় সংসদের উচ্চকক্ষে।

তবে রাজ্যসভায় বিরোধীদের তুমুল বিতণ্ডা, হইচই, বিক্ষোভ মাঝেই রবিবার ধ্বনিভোটে পাশ হয়েছে  কৃষি সংক্রান্ত দু'টি বিল। বিল পাশের পর ট্যুইটারে প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, কৃষকদের দ্বিগুণ আয়ের পথ সুগম হল। মধ্যস্থতাকারীদের হাত থেকে রক্ষা পেলেন কৃষকরা। এর পাশাপাশি ন্যূনতম সহায়ক মূল্যে ফসল কেনার ব্যবস্থা চালু থাকবে বলেও আশ্বাস দেন মোদী।   

রাজ্যসভায় কৃষিক্ষেত্রে সংস্কার সংক্রান্ত জোড়া বিল পাশ হওয়ার পর রবিবার  ট্যুইটারে প্রতিক্রিয়া দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তাঁর কথায়,''আজ দেশের কৃষি ইতিহাসে যুগান্তকারী দিন। সংসদে গুরুত্বপূর্ণ বিলটি পাশ হওয়ার পর পরিশ্রমী অন্নদাতাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এটা শুধুমাত্র কৃষিক্ষেত্রে আমূল বদলই আনবে না, বরং কোটি কোটি কৃষকের স্বার্থ সুরক্ষিত করবে।'' 

সোমবারও বিরোধীদের জবাব দিতে দেন মোদী, তিনি  বলেন, "নতুন কৃষি সংস্কার দেশের প্রতিটি কৃষককে স্বাধীনতা দিয়েছে যে সে তার ফসল, ফল এবং সবজি যে কারও কাছে, যে কোনও জায়গায় বিক্রি করতে পারেন। এখন সে যদি বাজারে বেশি লাভ পায় তবে সে সেখানে তার ফসল বিক্রি করবেন। "

কৃষি বিল নিয়ে সংসদে নরেন্দ্র মোদী সরকারকে প্রথম থেকেই চেপে ধরেছিল বিরোধীপক্ষ। কিন্তু রাজ্যসভায় কৃষি বিল পাশ হওয়ায় ফের একবার কৃষকদের অভিনন্দন জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিন এক অনুষ্ঠানে তিনি দেশের সমস্ত কৃষকদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন। পাশাপাশি এদিনও কৃষি বিল নিয়ে বিরোধীরা সবাইকে ভুল বোঝাচ্ছে দাবি করেন তিনি। তিনি কৃষকদের এই সব মিথ্যাচার থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেন। এই বিল পাশ হওয়াকে 'ভারতীয় কৃষির ইতিহাসের এক অবিস্মরণীয় মুহূর্ত' হিসাবে আখ্যা দেন।

প্রধানমন্ত্রীবলেন, 'গতকাল সংসদে দুটি কৃষি বিল পাশ হয়েছে। আমি আমার কৃষক ভাইদের এই বিল পাশ হওয়ায় অভিনন্দন জানাই। কৃষিক্ষেত্রে এই পরিবর্তন বর্তমান সময়ের প্রয়োজনে আনা হয়েছে এবং আমাদের সরকার কৃষকদের জন্য এই সংস্কার এনেছে। এই বিল কৃষিক্ষেত্রের সম্পূর্ণ রূপান্তর ও কোটি কোটি কৃষকদের ক্ষমতায়নের নিশ্চয়তা দেবে।'