১৮ দিন পরেও নিজেদের অবস্থানে অনড় আন্দোলনকারী কৃষকরা জানিয়ে দিলেন ১৯তম দিনের কর্মসূচি। আগামিকাল অর্থাৎ সোমবার তাঁরা প্রতিকী অনশন আন্দোলন করবেন। কৃষকদের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত কৃষকরা অনশন ব্রত পালন করবেন। সিংহু বর্ডার থেকে  কৃষক নেতা গুরুনাম সিং চিদোনি এই কথা ঘোষণা করেছেন। তিনি জানিয়েছেন যেখানে যেখানে কৃষকরা অবস্থান বিক্ষোভ করছেন সেখানেই অনশন কর্মসূচি গ্রহণ করার জন্য কৃষকদের আবেদন জানিয়েছেন। একই সঙ্গে দিল্লির সবকটি সীমানা এলাকায় ধর্না দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তাঁরা। 

অন্যদিকে এদিন কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমরের সঙ্গে দেখা করে উত্তরাখণ্ডের কৃষকরা নতুন কৃষি আইনের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন। কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রী জানিয়েছেন, যেসব কৃষকরা কৃষি আইনটি বুঝতে পেরেছেন তাঁরা এই আইনকে সমর্থন জানিয়েছেন। এদিন তিনি দীর্ঘক্ষণ উত্তরাখণ্ডের কৃষক নেতাদের সঙ্গে কথা বলেন। তার আগে অবশ্য বৈঠক কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে। 


কৃষি আইনের পক্ষে সওয়াল করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। তিনি বলেন যাঁরা বিরোধিতা করছে তারা বিরোধিতার জন্যই আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। নতুন কৃষি আইন উপকারী বলেও তিনি দাবি করেছেন। প্রায় একই সুরেই কথা বলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাবড়েকর। তবে এদিন কেন্দ্রের সমালোচনায় সরব হয়েছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তিনিও কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়ে একদিনের প্রতিকী অনশন পালন করবেন বলে জানিয়েছেন। 

কৃষকদের দিল্লি-জয়পুর রাস্তা অবরোধ কর্মসূচি থাকলেও তা কিছু অংশ দিয়ে যান চলাচল করছে। একই সঙ্গে কৃষকদের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে তাঁদের আন্দোলনকে সমাজবিরোধীদের হাত থেকে বাঁচানোর চেষ্টা তাঁরা করবেন। সিংহু বর্ডারে কৃষক নেতা রাজেশ টিকাইত জানিয়েছেন তাঁরা সবদিকে লক্ষ্য রাখছেন।