ভারতের প্রথম দেশিয় সম্ভাব্য কোভিড-১৯ টিকা, কোভাক্সিন-এর প্রথম ধাপের ক্লিনিকাল ট্রায়াল বা মানবদেহে পরীক্ষা শেষ হয়েছে। প্রথম এই ধাপের ফলাফল অত্যন্ত 'উত্সাহজনক' বলেই জানিয়েছেন ভ্যাকসিন ট্রায়াল দলের প্রধান। রবিবারই পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস-এ এই মানবদেহে পরীক্ষার প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষ হয়েছে। গত ১৭ জুলাই পিজিআই রোহাতক-এ এই পরীক্ষা শুরু হয়েছিল। প্রথম দিন টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছিল তিনজন স্বেচ্ছাসেবী-কে।

এদিন, ভ্যাকসিন ট্রায়াল দলটির প্রধান ডাক্তার সবিতা ভার্মা জানিয়েছেন, কোভাক্সিন-এর ফেজ-১'এর প্রথম পর্বের পরীক্ষায় ভারত ব্যাপী ৫০ জনকে এই টিকা দেওয়া হয়েছে এবং এর ফলাফল অত্যন্ত উৎসাহজনক। শনিবার থেকে ফেজ-১ এর দ্বিতীয় অংশের অধীনে ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হয়েছে। শনিবার ভ্যাকসিনটির দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ছয়জন স্বেচ্ছাসেবী।

চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে, কোভাক্সিনের মানবদেহে পরীক্ষা শুরু হয়েছে। ৩০ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে প্রথম ডোজের ইনজেকশন দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার এইমস-দিল্লির গবেষণা দলের প্রধান জানিয়েছিলেন, টিকাটির কোনও তাত্ক্ষণিক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। ইতিমধ্যে, সাড়ে তিন হাজারেরও বেশি স্বেচ্ছাসেবক এইমস-এর পরীক্ষার স্বেচ্ছাসেবী হওয়ার জন্য নাম লিখিয়েছেন।

জানা গিয়েছে, প্রথম পর্যায়ে ভ্যাকসিন টি মানবদেহে ব্যবহারের জন্য কতটা সুরক্ষিত তা যাচাই করা হয়েছে। এই বিষয়কেই গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল। এর মধ্য দিয়ে ডোজের পরিমানও গণনা করা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্যায়ে এক সঙ্গে ভারতের ১২ এলাকার, ১২ থেকে ৬৫ বছর বয়সী প্রায় ৭৫০ জন স্বেচ্ছাসেবককে টিকা দেওয়া হবে।