দেশের করোনাভাইরাসের সংক্রমণের পরিস্থিতি নিয়ে মন কি বাত অনুষ্ঠানে রীতিমত উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রবিবার মন কি বাত অনুষ্ঠানে তিনি বলেন আর কিছুদিন পরে গোটা দেশে উজ্জাপন করা হবে  স্বাধীনতা দিবস। কিন্তু এবার মহামারীর মধ্যেই স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান পালন করতে হবে। তাই এই ১৫ অগাস্টের অনুষ্ঠান একটু অন্যভাবে উজ্জাপন করতে হবে। মহামারী থেকে মুক্তির প্রতিশ্রুতি দেওয়ার জন্য দেশের যুব সমাজের কাছে আহ্বান জানান প্রধানমমন্ত্রী। কারণ এদিন দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ লক্ষ ৮৫ হাজারেরও বেশি। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮ হাজারেরও বেশি মানুষ। করোনা আক্রান্ত দেশের ক্রম তালিকায় ভারতের স্থান তৃতীয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পরেই। মাসিক রেডিও অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরুতে যে অবস্থায় ছিল তার থেকে এখন পরিস্থিতি অনেকটাই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে। 


স্বারাষ্ট্র মন্ত্রকের নির্দেশিকা অনুযায়ী এবার স্বাধীনতা দিসবের অনুষ্ঠানে ভিড় এড়িয়ে চলতে নির্দেশ দোওয়া হয়েছে রাজ্য সরকার ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলিকে। পাশাপাশি অনুষ্ঠান সম্প্রচারের জন্য প্রযুক্তি নির্ভর হওয়ার কথা বলা হয়েছে। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের জন্য মাস্ক আর স্যানিজাটারের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 


 প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী 'লোকাল থেকে ভোকাল' হওয়ার অঙ্গীকার করার জন্যেও স্বাধীনতা দিবসের প্রবিত্র দিনটি বেছে নেওয়ার কথা বলেন। তিনি বলেন এই সময়ই স্থানীয়ভাবে উৎপন্ন ক্ষুদ্র ও কুটীর শিল্পজাত দ্রব্যগুলিকে বিশ্বের বাজারে ছড়িয়ে দিতে হবে। যাতে বিশ্বে ব্র্যান্ড হিসেবে পরিচিতি পায় ভারত। আর সেই প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বিহারের একদল মুক্ত ব্যবসায়ীর কথা উল্লেখ করেন। যাঁরা নিজেদের উদ্যোগে আজ সাফল্যের মুখ দেখেছেন। কর্ম সংস্থানের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন অনেকের। মধুবনি মাস্কের কথাও তিনি বলেন। এই মাস্ক বর্তমানে গোটা দেশেই তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। 

কার্গিল যুদ্ধের শহিদদের শ্রদ্ধা কেন্দ্রীয় দুই মন্ত্রীর, কী বললেন অমিত শাহ আর রাজনাথ সিং ...

মন কি বাত অনুষ্ঠানে কার্গিল যুদ্ধ নিয়ে পাকিস্তানকে নিশানা, ভারতীয় সেনাদের প্রশংসা প্রধানমন্ত্রীর ..
মন কি বাত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাখি বন্ধন অনুষ্ঠানের কথাও বলেন। তিনি বলেন, আর কিছুদিন বলেই রাখি বন্ধন অনুষ্ঠান। এবার এই অনুষ্ঠানে দেশের তৈরি রাখি পারানোর ওপরেও পরোক্ষভাবে জোর দেন তিনি। নরেন্দ্র মোদী বলেন, যদি স্বদেশী পন্য কেনা বেচার ওপর সাধারণ মানুষ জোর দেন তাহলে যাঁরা ওই শিল্পের সঙ্গে জড়িত তাঁরা উপকৃত হবেন।