এক দেশ এক ভোট নিয়ে ঝড় উঠেছে সাংসদে। সেই প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে কিনা জানা নেই, তবে খুব শিগগির চালু হতে চলেছে এক দেশ এক রেশন কার্ড প্রকল্প। দেশের মধ্যে পেশাগত কারণে ভীনরাজ্যে থাকতে বাধ্য মানুষজনের যাতে রেশন পেতে কোনও অসুবিধে না হয়, সে দিক নিশ্চিত করতেই এমন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রামবিলাস পাসোয়ান। 

কেন্দ্রীয় খাদ্যমনত্রী রামবিলাস পাসোয়ান জানাচ্ছেন, এই ব্য়বস্থা চালু হলে দেশের যে কোনও জায়গা জুড়ে খাদ্য়বন্টন সংক্রান্ত দুর্নীতিতে অনেকটাই রাশ টানা যাবে। প্রসঙ্গত , দেশ জুড়ে রেশন কার্ডে রিয়েল টাইম অনলাইন ডেটাবেস তৈরির কথা জানিয়ে খাদ্যমন্ত্রক। ইতিমধ্যেই গুজরাট, হরিয়ানা, ঝাড়খণ্ড, কর্ণাটক, কেরালা, মহারাষ্ট্র, রাজস্থান, তেলেঙ্গানা, ত্রিপুরায় এই ব্যবস্থা চালুও হয়ে গিয়েছে।  

সংবাদমাধ্যমকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পাসোয়ান জানিয়েছেন, প্রকল্পটি এক বছরের মধ্যে শেষ করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এই প্রকল্প কার্যকর করতে হসে প্রতিটি পিডিএস দোকানে পিওএস মেশিনের ব্যবস্থা করা বাধ্যতামূলক হয়ে দাঁড়াচ্ছে। এই মুহূর্তে অন্ধ্রপ্রদেশ, হরিয়ানায় পিওএস মেশিন রয়েওছে। বাকি অঞ্চলগুলিতেও শিগগির কার্জকর হবে এই মেশিন।  বলাই বাহুল্য দেশের কোনও রাজ্যই এই প্রকল্পের বিরোধিতা করেনি। 

এদিন সব রাজ্যের খাদ্য সচিবদের নিয়ে একটি সম্মেলনে, ফুড কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া, সেন্ট্রাল ওয়ারহাউসিং কর্পোরেশান এবং স্টেট ওয়ারহাউসিং কর্পোরেশনের অফিসাররা হাজির ছিলেন। এক দেশ এক রেশন কার্ডের পাশাপাশি আলোচনা হয়েছে খাদ্য বন্টনের মত বিষয়গুলির অনলাইন রেকর্ড তৈরির মতো বিষয়েও।