এতটাও বর্বর মানুষ হতে পারে! একটি ভিডিও ভাইরাল না হলে বিশ্বাসই করা যেত না। জলের মধ্যে যন্ত্রণায় ছটফট করছে একটি বিরল প্রজাতির গাঙ্গেয় ডলফিন বা শুষুক। আর তাকে ঘিরে ধরে, লাঠি, লোহার রড এ কুড়ুল দিয়ে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে চলেছে একদল পুরুষ। ধীরে ধীরে গঙ্গার জল রক্তে লাল হয়ে যায়। মৃত্যুর কোলে নেতিয়ে পড়ে শুশুকটি। এই ভয়াবহ ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে নক্কারজনক প্রাণীহত্যার এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের প্রতাপগড়ের একজায়গায়, ২০২০ সালের একেবারে শেষ দিন, অর্থাৎ ৩১ ডিসেম্বর। শুশুকটিকে ওখানে দেখা গিয়েছে শুনে ওই গ্রামে এসেছিলেন বন বিভাগের এক আধিকারিক। নদীর পাশে প্রাণীটিকে তিনি প্রাণহীন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। আশেপাশের গ্রামবাসীরা থাকলেও শুশুকটি কীভাবে মারা গেল জিজ্ঞাসা করায় কেউ মুখ খোলেননি। এরপর প্রাণীটির দেহের ময়নাতদন্ত করে দেখা যায় কুড়ুল-সহ বহু প্রহারের জখম রয়েছে তার শরীর জুড়ে। তারপরই বনবিভাগের ওই কর্তা পুলিশে একটি এফআইআর দায়ের করেন।

এরমধ্যেই ভাইরাল হয় ওই হত্যার চরম নিষ্ঠুর ভিডিওটি। তাতে দেখা যায়, তিন ব্যক্তি গাঙ্গেয় ডলফিন টিকে লাঠি-রড দিয়ে পিটিয়েই যাচ্ছে, আর তার শরীর থেকে রক্তধারা বইছে। শুশুকটি যাতে মারের হাত থেকে পালাতে না পারে, তার জন্য অন্য কয়েকজন তাকে চেপে ধরে আছে। পাশ থেকে একজন বলে, 'ফালতু মে মার রাহে হো ইয়ার (অকারণে মারছ ভাই)। কিন্তু, উন্মত্ত জনতার কেউ তার কথা কানে নেয়নি। উপরন্ত শুশুকটির শরীর থেকে রক্তক্ষরণ হতে দেখে একজন একটি কুড়ুল নিয়ে এসে তাকে আক্রমণ করে। ভিডিওটির শেষ অংশে সেই ধারালো অস্ত্রের কোপে শুশুকটিকে প্রাণ হারাতে দেখা যায়।

ভিডিওটি ভাইরাল হতেই সেই ভিডিও দেখে ৩ জনকে সনাক্ত করে পুলিশ। শুক্রবার তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। গাঙ্গেয় ডলফিন বা শুশুক এক বিরল প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী। চোরাশিকারীদের দাপটে এই বিরল প্রজাতীর প্রাণী এখন ভারতে লুপ্তপ্রায় প্রাণীতে পরিণত হয়েছে। এই ধরণের প্রাণী হত্যার কারণে বন্যপ্রাণ সুরক্ষা আইনের আওতায় কড়া শাস্তি হতে পারে দোষীদের। তবে কীকরে একট শুশুকের মতো নিরীহ প্রাণীকে এইরকম জঘন্য আক্রমণ করে হত্যা করা হল, তা বিস্মিত করেছে সকলকে।