ফের প্রবল বর্ষণের কবলে মুম্বই ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকা। মঙ্গলবার সকাল থেকেই আন্ধেরি, বোরিভালি, গোরেগাঁও এলাকায় নতুন করে ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। দিল্লির মৌসম ভবন থেকে আগেই মুম্বই, থানে এবং পালঘরে ভারী বৃষ্টির পূর্বাবাস দেওয়া হয়েছিল। 
 
হাওয়া অফিসের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, আগামী ২৪ ঘণ্টা মহারাষ্ট্র উপকূল জুড়ে ৪০-৫০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে। এর জন্য মৎস্যজীবীদের আগামী ২৪ ঘণ্টা গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।
 
গত শুক্র ও শনিবার অতি ভারী বৃষ্টির কবলে পড়ে বিপর্যস্ত হয়েছিল মুম্বইয়ের স্বাভাবিক জনজীবন। শুক্রবার রাত্রে এবং শনিবার সকালে হওয়া বৃষ্টিপাতের ফলে বন্ধ করে দিতে হয় মুম্বই-গোয়া জাতীয় সড়ক। খারাপ আবহাওয়ার জন্য বাতিল হয় বহু বিমান এবং ট্রেন। লাইনে জল উঠে যাওয়ার মাঝপথে আটকে পড়ে কোলাপুরগামী মহালক্ষী এক্সপ্রেস। রেলপুলিশের তৎপরতায় বড় কোনও দুর্ঘটনা না ঘটলেও ওই লাইনের প্রায় ১৭টি ট্রেন বাতিল হয়ে যায়। 
   
রবিবার এবং সোমবার বৃষ্টির দাপত একটু কমেছিল। কিন্তু মঙ্গলবার থেকে আবার ঝেপে বৃষ্টি নেমেছঠে মুম্বইয়ে। রবিবার সকাল থেকে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ট ৪৮ ঘন্টায় শুধু মুম্বই শহরেই ৩৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। জুলাই-এর এই সময়ে ৪৮ ঘন্টায় এর আগে এত বৃষ্টি কখনও দেখা যায়নি। 

তবে শুধু মহারাষ্ট্রেই নয়, মঙ্গলবার থেকে ভারী বর্ষণের কবলে পড়তে চলেছে তেলেঙ্গানা, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিসগড় এবং নাগাল্যান্ডের রাজ্যও। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস এমনটাই জানাচ্ছে। এছাড়া হিমাচলপ্রদেশের কুলু, মান্ডি, কাঙরা, বিলাসপুর, সিমলা জেলাতেও বজ্র বিদ্যুৎ-সহ ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে ।