মঙ্গলবার রাতে ভালই বৃষ্টি হয়েছিল। তারপর পুনেতে দিনের শুরুটা ছিল ঠান্ডা ঠান্ডা। বেলা বাড়তেই অবশ্য চড়া রোদ উঠেছিল। কিন্তু রাত নামতেই জলবায়ু পরিবর্তনের ভয়ঙ্কর প্রভাবের সাক্ষি হল পুনে। রাত ৮টার পর থেকে মাত্র ১ ঘন্টাতেই প্রায় ১০০ থেকে ১৫০ মিলিমিটার বৃষ্টি হল। যার ফলে পুনে শহরের প্রায় অধিকাংশ এলাকাতেই বন্য়া পরিস্থিতি তৈরি হল।

আর এই অতি ভারী বৃ্ষ্টিতে জলস্তর বেড়ে যাওয়ায় রাত ১টা নাগাদ খড়কওয়াসলা বাঁধ থেকে ৯৪১৬ কিউসেক জল ছাড়া হয়েছে। এছাড়া কাটরাজ টানেলের কাছে এক জায়গায় ভূমিধ্বস নেমেছে। সেখানে উদ্ধারকাজ চালানোর জন্য জাতীয় মোকাবিলা বিপর্যয় বাহিনীর একটি দলকে পাঠানো হয়েছে।  

এমন ভয়াবহ মেঘ ফাটা বৃষ্টি যে হতে চলেছে তার কোনও পূর্বাভাস কিন্তু দিল্লির মৌসম ভবন দিতে পারেনি। আর এই আচমকা বৃষ্টিতে রীতিমতো আতঙ্ক ছড়ালো পুনে শহরে। অনেকেই সোশ্য়াল মিডিয়ায় সেই ভয়ানক বৃষ্টির ছবি ভিডিও পোস্ট করেছেন। অনেকেই বলেছেন জলবায়ু পরিবর্তন যে বাস্তব ঘটনা তা এই একদিনের বৃষ্টিই তাদের বুঝিয়ে দিল।  

পুনে পুরসভার বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের প্রধান গণেশ সনুনে জানিয়েছেন শহর ও শহরতলীর বিভিন্ন জায়গা থেকেই মানুষ তাঁদের ফোন করে জলমগ্ন রাস্তার কথা জানিয়েছেন। তাঁরা সাধ্যমতো যা করার করছেন। তবে এই বিপর্যয়ের মধ্য়ে অনেক গুজবও ছড়াচ্ছে। তাতে কান না দিয়ে বাসিন্দাদের সরাসরি তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।