আজ রাষ্ট্রপতি ভবনে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আরও একবার শপথ নিতে চলেছেন নরেন্দ্র মোদী। বৃহস্পতিবার সন্ধের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন ৫০০০ থেকে ৬০০০ মানুষ। 

পুরো অনুষ্ঠানটিতে এত মানুষ উপস্থিত থাকায় দেখতে বিরাট লাগলেও আসলে খুব সাধারণ ভাবেই এই অনুষ্ঠান সম্পন্ন করা হবে। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ও স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছেতেই নাকি এই অনুষ্ঠানকে যতটা সম্ভব সাধারণ রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। 

রাষ্ট্রপতি ভবনের সামনে বিশাল মঞ্চে শপথ নেবেন নরেন্দ্র মোদী। এমনতি  দুর্বার হলে প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। এই হলে ৫০০-র বেশি মানুষের থাকা সম্ভব নয়। এই নিয়ে চতুর্থ বার কোনও প্রধানমন্ত্রী দুর্বার হল ছেড়ে অন্য জায়গায় শপথ নেবেন। 

অটল স্মরণ, শহিদ তর্পণ, মোদী শুরু করলেন নতুন দিন

রাষ্ট্রপতি ভবনের সামনে এই প্রাঙ্গনে ১৯৮৮ সালে প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন অটল বিহারী বাজপেয়ী। এর পরে ১৯৯০ সালে চন্দ্র শেখরও এখানেই শপথ নিয়েছিলেন। ২০১৪-তে নরেন্দ্র মোদীও এখানে বিশাল সংখ্যক মানুষের সামনে শপথ নিয়েছিলেন। সেই ইতিহাসেরই পুনরাবৃত্তি হতে চলেছে আবার। 

মোদীর শপথ গ্রহণে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ১৪টি দেশের প্রধানকে। এছাড়াও বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিক, অভিনেতারাও উপস্থিত থাকবেন। জাতীয় ও আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলির প্রধানরাও আমন্ত্রিত থাকবেন এইদিন। ২০১৪-য় যেভাবে এই অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছিল, সেভাবেই এবারও হবে। 

রাষ্ট্রপতি ভবন থেকে আমন্ত্রিতদের নৈশভোজের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। তার আগে সন্ধে ৭টা নাগাদ প্রত্যেককে চা দেওয়া হবে। চায়ের সঙ্গে শুধুমাত্র নিরামিষ স্ন্যাকসই দেওয়া হবে। এর মধ্যে থাকবে সিঙাড়া, রাজভোগ, লেমন টার্ট। তবে নৈশভোজে নিরামিষের সঙ্গে আমিষের ব্যবস্থাও থাকছে। মঙ্গলবার রাত থেকে এই রাজকীয় শপথ গ্রহণের রান্নার আয়োজন শুরু হয়েছে।