ফের এক জোরালো বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল মণিপুরের রাজধানি ইম্ফল। সোমবার রাতে লাংথাবলে ইন্ডিয়ান ইনফ্রা প্রজেক্ট লিমিটেড অফিসের সামনে একটি শক্তিশালী আইইডি বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণে অফিসের গেটটি দুমরে মুচরে গিয়েছে। তবে কোনও হতাহতের খবর নেই। এই নিয়ে গত দশ দিনে শহরে তৃতীয় বিস্ফোরণ ঘটল। কারা এই বিস্ফোরণ ঘটাচ্ছে, সেই সম্পর্কে এখনও কোনও সূত্র না পাওয়া যাওয়ায় আতঙ্ক বাড়ছে শহরবাসীর।

প্রথম বিস্ফোরণটি ঘটেছিল পূর্ব ইম্ফলের তেলিপাতি এলাকায়। ওই ঘটনায় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর তিন সদস্য আহত হয়েছিলেন। তাঁরা এখনও হাসপাতালে ভর্তি। পরের অর্থাৎ, দ্বিতীয় বিস্ফোরণটি ঘটেছিল ৫ নভেম্বর, ইম্ফলের থাঙ্গাল বাজারে। ওই ঘটনায় চার পুলিশ-সহ মোট পাঁচজন আহত হয়েছিলেন। পাশাপাশি পার্কিং লটে থাকা বেশ কিছু গাড়িও দুমরে গিয়েছিল। ওইদিন থাঙ্গাল বাজারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার-সহ পুলিশের একটি দল ছিল। সেই সময়ই বিস্ফোরণ ঘটেছিল।

এখনও পর্যন্ত পরপর এই বিস্ফোরণ কারা ঘটাচ্ছে সেই সম্পর্কে কিছুই জানা যায়নি। পুলিশ জানিয়েছে, তদন্তের স্বার্থেই কিছু জানানো হচ্ছে না। তবে বিস্ফোরণ ঘটা শুরু হওয়ার আগে থেকেই রাজ্যে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। কারণ নাগা জঙ্গি এবং সরকারের মধ্যে যে শান্তি আলোচনা চলছে তাকে কেন্দ্র করে রাজ্যে অশান্তির আশঙ্কা করা হয়েছিল। স্পর্শকাতর এলাকাগুলিতে বাড়তি নিরাপত্তাবাহিনী এবং পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছিল। এই বিস্ফোরণগুলির পিছনেও ওই শান্তি আলোচনা-য় বিঘ্ন ঘটানোর উদ্দেশ্য খারতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

দীর্ঘদিন ধরেই নাগা জঙ্গিরা গ্রেটার নাগাল্যান্ডের দাবি জানিয়ে আসছেন। তাদের বক্তব্য নাগা জাতিয়তাবাদ অনুযায়ী এখনকার নাগাল্যান্ডসহ, মণিপুর এমনকী মায়ানমারের কিছু অংশ নিয়ে গ্রেটার নাগাল্যান্ড রাজ্য গঠন করতে হবে। চলতি শান্তি আলোচনায় তারা নাগাদের জন্য পৃথক পতাকা ও সংবিধানের দাবি জানিয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। তবে সরকারি সূত্রের খবর সরকার পক্ষ থেকে তা মানা হয়নি।