কারোর সমস্যা স্বাস্থ্য, কেউ আবার নিরামিষ খান। ভারতের মতো দেশে আবার ধর্মীয় বিধি নিষেধও আছে। এইভাবে ডিমের স্বাদ ও তার মধ্যে থাকা উচ্চ মাত্রার প্রোটিন থেকে বঞ্চিত হন অনেকেই। আর তাদের কথা ভেবেই এইবার দিল্লি আইআইটির একদল গবেষক এক চমকপ্রদ আবিষ্কার করলেন। যাকে তাঁরা বলছেন 'ডিমের ডিমহীন নিরামিষ বিকল্প'।

আদতে এটি সাধারণ ডিমের নিরামিষ বিকল্প। গবেষকরা জানিয়েছেন উদ্ভিজ্জ উপাদানগুলির মধ্যে প্রোটিনের সবচেয়ে সাধারণ উৎস হল ডাল। তাই তাঁরা ডাল নিয়েই গবেষণা শুরু করেছিলেন। তাতেই তাঁরা জানতে পারেন ডিমের সাদা অংশে যে পরিমাণ প্রোটিন থাকে, প্রায় তাঁর সমপরিমাণ প্রোটিন পাওয়া যায় মুগডালে। তারপরই মুগডাল থেকে তাঁরা এই নিরামিষ ডিম তৈরি করেন।

গবেষকদের এই দলটির নেতৃত্বে ছিলেন, আইআইটি দিল্লির সেন্টার ফর রুরাল ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড টেকনোলজির প্রধান কাব্য দাশোরা। তিনি জানিয়েছেন ডিম প্রোটিনে ভরপুর হলেও তার কিছু খারাপ দিকও রয়েছে। ডিম থেকে কোলেস্টেরল বাড়ার সম্ভাবনা থাকে, আবার অনেকের অ্যালার্জিও হয়। এছডা়া ধর্মীয় বা অন্যান্য কারণে যাঁরা আমিষ খান না তাঁদের কাছে ডিমের প্রোটিন পৌঁছে দিতেই তাঁদের মাথায় প্রথম একটি বিকল্প ডিম তৈরির ভাবনা আসে।

তবে শুধু গুণ, ডিম কিন্তু স্বাদেও অতুলনীয়। অনেকেই ডিম খেতে অত্যন্ত ভালবাসেন। কাব্য দাশোরার দাবি তাঁদের 'ডিমহীন নিরামিষ ডিম' খেলে মনে হবে সত্যি সত্যি ডিমই খাওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্য়েই অনলাইনে তাঁরা নিরামিষ ডিমের ভুজি বিক্রি করা শুরু করে দিয়েছেন। আগামী শনিবার থেকে তাঁদের ইনস্টিটিউটে ইন্ডাস্ট্রি ডে ২০১৯ শুরু হচ্ছে। সেখানে এই ডিম প্রদর্শনীতে থাকছে। তবে ডিমেই থামছেন না তাঁরা। এই সাফল্যে উৎসাহিত হয়ে আগামী দিনে তাঁদের লক্ষ্য উদ্ভিদ থেকে মাংসজাতীয় পণ্য যেমন সসেজ, গরুর মাংস, পাঁঠার মাংস, মুরগী, টার্কি ইত্যাদি তৈরি করা।