আইআইটি মাদ্রাজের হস্টেলের একটি রুম থেকে ১৯ বছরের  এক ছাত্রীর মৃতদেহ উদ্ধার করল পুলিশ।  পুলিশ প্রাথমিকভাবে অনুমান করছে ছাত্রীটি আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু মৃতদেহের পাশে কোনও সুইসাইড নোট  পাওয়া যায়নি।  পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, কেন ছাত্রীটি আত্মহত্যা করেছে, তা জানা যায়নি। পুলিশ তদন্ত করতে শুরু করেছে।  ছাত্রীটি কেরালার প্রত্যন্ত অঞ্চলের বাসিন্দা।  মাদ্রাজ আইআইটিতে এমএ করতে এসেছিলেন। 

মাদ্রাজ আইআইটির তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে,  আইআইটির এক ছাত্রীর মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। হিউম্যান ও সোশ্যাল সায়েন্স বিভাগের ছাত্রী ছিলেন তিনি। মাদ্রাজ আইআইটির প্রতিটি পড়ুয়া ও কর্মী ছাত্রীটির পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছে।  এই মত্যু আইআইটি মাদ্রাজের জন্য একটা বড় ক্ষতি বলে মন্তব্য করেছে আইআইটি কর্তৃপক্ষ মন্তব্য করেছে।  পুলিশ প্রাথমিকভাবে মনে করছে, ক্রমাগত পরীক্ষায় কম নম্বর পাওয়ার জেরে ছাত্রীটি আত্মহত্যা করেছে। 

মাদ্রাজ আইআইটিতে প্রায়শই পড়ুয়া আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে।  ২০১৮ সালের ডিসেম্বর থেকে এখনও পর্যন্ত মোট পাঁচ জন আত্মহত্যা করেছে।  চলতি বছরে সেপ্টেম্বরের ২২ তারিখে এস শহল কোরমাথ নামের ওসেন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের এক পড়ুয়া আত্মহ্যা করেন। তিনি কেরালার বাসিন্দা ছিলেন। চলত্তি বছ জানুয়ারি মাসে এমটেকের এক পড়ুয়া আত্মহত্যা করেন। একজন অধ্যাপকও আত্মহত্যা করেন বলে জানা গিয়েছে। বেশিরভাগ আত্মহত্যার অবসাদের জেরে আত্মহত্যা করেন। আইআইটি কর্তৃপক্ষ  অবসাদের ভোগা পড়ুয়াদের জন্য বিনামূল্যে কাউন্সিলিংয়ের ব্যবস্থা করেছে। শুধু তাই নয়, প্রতিটি হস্টেলের সামনে কাউন্সিল বিভাগের নম্বর দেওয়া হয়েছে। তারপরেও কেন মাদ্রাজ আইআইটি এত আত্মহত্যার ঘটনা ঘটছে সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।