রবিবার দেশে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা রেকর্ড গড়ে ছিল ৭৮ হাজার ৭৬১। সোমবারও সেই চিত্রের বিশেষ বদল ঘটলো না। এদিনও আক্রান্তের সংখ্যা থাকল ৭৮ হাজারের উপরে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৭৮ হাজার ৫১২ জন। ফলে ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা হয়েছে  ৩৬ লক্ষ ২১ হাজার ২৪৬। দৈনিক সংক্রমণে রবিবারই বিশ্বের মধ্যে রেকর্ড গড়েছে ভারত। এতদিন দৈনিক সংক্রমণে রেকর্ড ছিল আমেরিকার কাছে। ১৬ জুলাই সেদেশে আক্রান্ত হয়েছিলেন ৭৭,২৯৯ জন। রবি ও সোমাবার পরপর ২দিনে সেই রেকর্ড ছাপিয়ে গেল ভারত। করোনা সংক্রমণে বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ৩৮ লক্ষের বেশি। ফলে ভারত খুব শীঘ্রই ব্রাজিলকে মোট সংক্রমণে পার করে যেতে পারে এমন আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে।

 

 

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা প্রাণ কেড়েছে ৯৭১ জনের। ফলে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬৪ হাজার ৪৬৯। তবে এসবের মধ্যে আশার আলো দেখাচ্ছে সুস্থতার হার। এখনও পর্যন্ত ভারতে করোনা জয় করেছে ২৭ লক্ষ ৭৪ হাজার ৮০২ জন। ফলে দেশে বর্তমানে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৭ লক্ষ ৮১ হাজার ৯৭৫। দেশে সুস্থতার হার ৭৬ শতাংশ ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ২ শতাংশের নিচেই রয়েছে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের রিপোর্ট অনুযায়ী,রবিবার গোটা দেশে ৮ লক্ষ ৪৬  হাজার ২৭৮  কোভিড টেস্ট হয়েছে।  সব মিলিয়ে ভারতে এ পর্যন্ত ৪ কোটি ২৩  লক্ষ ৭ হাজার ৯১৪ টি নমুনার কোভিড পরীক্ষা হয়েছে।  

 

 

এদিকে হাসপাতাল থেকে অবশেষে বাড়ি ফিরলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। চলতি মাসের ২ তারিখ অমিত শাহ করোনা আক্রান্ত হন। তিনি নিজেই ট্যুইট করে জানান সে কথা। ১৪ তারিখ তাঁর করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। গুরুগ্রামের মেদান্ত হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলে, সেরে ওঠার পর হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে আসেন তিনি। 

 

 

 তবে তার কিছুদিনের মধ্যেই তাঁকে ফের হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়। ১৮ অগস্ট গভীর রাতে দিল্লির এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হয় অমিত শাহকে। কোভিড-১৯ পরবর্তী শারীরিক কিছু সমস্যার জন্য তাঁর চিকিত্‍‌সা চলছিল দিল্লির  এইমস হাসপাতালে। সোমবার সকালে তাঁকে সেখান থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।