আগামী মাস থেকেই দেশে শুরু হয়ে যেতে পারে করোনাভাইরাসের টিকাকরণ। রবিবার তেমনই জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। তিনি বলেছেন অগ্রাধিকারের ভিত্তিতেই টিকাকরণ হবে। ভ্যাক্সিনের সুরক্ষা ও কার্যকারিতা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার কোনও রকম আপোষ করতে চায় না বলেও দাবি করেছেন তিনি। তবে জানুয়ারির কোনও সপ্তাহ থেকে টিকাকরণ শুরু হবে না স্পষ্ট করে জানানি কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী। 

গোটা দেশেই করোনাভাইারাসের ভ্যাক্সিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে। ইতিমধ্যে কোভ্যাক্সিন ও কোভিশিল্ডের জরুরি অনুমোদনের আর্জি জানিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের দ্বারস্থ হয়েছে ভারত বায়োটেক ও সেরাম ইনস্টিটিউট। তবে এখনও পর্যন্ত কোনও বার্তা দেয়নি কেন্দ্রীয় সংস্থাটি। আগের দিনই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষ বর্ধন সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে জানিয়েছিলেন দেশের বর্তমান করোনা পরিস্থিতি জানিয়েছিলেন। 

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী টানা ৭ দিন দেশের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ হাজারের নিচে ছিল। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এই পরিসংখ্যান স্বাস্তি দিয়েছে বিশেষজ্ঞদের। অনেকেই মনে করছেন দেশে করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা খুবই কম। অনেকেই আবার মনে করছেন যদিও বা দ্বিতীয় তরঙ্গ আছড়ে পড়ে তবে তা তেমন ভয়ঙ্কর আকার নেবে না।