দৈনিক সংক্রমণের গ্রাফ যেন আর কিছুতেই নিচে নামতে চাইছে না। এদিনও চিত্রের খুব একটা পরিবর্তন হল না। দৈনিক আক্রান্ত থাকল ৯০ হাজারের উপরেই। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৯৩ হাজার ৩৩৭ জন। যার ফলে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের রেকর্ড অনুযায়ী বর্তামনে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩ লক্ষ ৮ হাজার ১৫ জন।

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা প্রাণ কেড়েছে ফের ১,২০০ উপর মানুষের। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী সংখ্যাটা ১,২৪৭। ফলে এদেশে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮৫ হাজার ৬১৯।

 

 

সংক্রমণ নিয়ে উদ্বেগের মধ্যেই আশার আলোও রয়েছে। দৈনিক সুস্থতার সংখ্যায় রেকর্ড গড়েছে  ভারত। দেশে একদিনেই সুস্থ হয়েছেন প্রায় ৯৬ হাজার মানুষ। যা দৈনিক সংক্রমণের থেকে প্রায় আড়াই হাজার বেশি। এই মুহূর্তে দৈনিক সুস্থতার সংখ্যায় গোটা বিশ্বের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে আমাদের দেশ। স্বাস্থ্যমন্ত্রক বলছে, এখনও পর্যন্ত ভারতে করোনা জয়ীর সংখ্যা ৪২ লক্ষ ৮ হাজার ৪৩২। ফলে দেশে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ লক্ষ ১৩ হাজার ৯৬৪। সারা দেশে সুস্থতার হার দাঁড়িয়েছে ৭৯.২৮ শতাংশ। দেশে মৃত্যুর হার হয়েছে  ১.৬১ শতাংশ।

প্রতি দিন যে সংখ্যক মানুষের করোনা পরীক্ষা হচ্ছে তার মধ্যে যত শতাংশের কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ আসছে, সেটাকেই বলা হচ্ছে পজিটিভিটি রেট বা সংক্রমণের হার। গত দু’দিন দেশের সংক্রমণ হার বেড়েছে। শনিবার তা ১০ শতাংশের উপরে গিয়ে হয়েছে  ১০.৫৮ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে পরীক্ষাও অনেক কম হয়েছে। ৮ লক্ষ ৮১ হাজার ৯১১ জনের কোভিড টেস্ট হয়েছে। ফলে দেশে এখনও পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে  ৬ কোটি ২৪ লক্ষ ৫৪ হাজার ২৫৪। 

 

 

এখনও ভারতে  দৈনিক আক্রান্ত ও মৃত্যুর নিরিখে সবার আগে রয়েছে মহারাষ্ট্র। মারাঠা রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ১১ লক্ষ ছাড়িয়েছে। ২৪ ঘন্টায় সেখানে আক্রান্তের সংখ্যাটা ২১ হাজারের বেশি। আক্রান্তের নিরিখে দেশে প্রথম ৫ রাজ্য হল মহারাষ্ট্র, অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, কর্নাটক, উত্তরপ্রদেশ। ষষ্ঠস্থানে রয়েছে দিল্লি। আর সপ্তমস্থানে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ।