আরও একবার দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় রেকর্ড গড়ে ফেলল ভারত। বৃহস্পতিবার দেশে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৩ হাজারের কাছাকাছি। শুক্রবার সকালে সেই রেকর্ডও পেরিয়ে গেল। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ১৩ হাজার ৫৮৬ জন। যা এদেশে এখনও পর্যন্ত দৈনিক সংখ্যায় সর্বোচ্চ। ফলে ভারতে বর্তমানে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লক্ষ ৮০ হাজার ৫৩২ জন।

 

স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা প্রাণ কেড়েছে ৩৩৬ জনের। ফলে দেশে কোভিড ১৯ রোগে মোট মৃতের সংখ্যা েখন ১২ হাজার ৫৭৩। তবে এর মধ্যেও রয়েছে আশার খবর। দেশে এখনও পর্যন্ত মারণ ভাইরাসকে হারিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ লক্ষ ৪ হাজার ৭১১ জন। ফলে ভারতে বর্তমানে সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ৬৩ হাজার ২৪৮। প্রায় ২ সপ্তাহ হতে চলল দেশে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা আক্রান্তের সংখ্যার তুলনায় বেশি থাকছে। পাশাপাশি দেশে সুস্থতার হার বেড়ে হয়েছে ৫৩.৭৯ শতাংশ। 

আরও পড়ুন: গালওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষে আহত হয়েছিলেন ৭৬ জন জওয়ান, এবার বিশদে তথ্য প্রকাশ করল ভারতীয় সেনা

এদিকে দেশে আক্রান্তের সংখ্যায় এখনও এক নম্বরে রয়েছে মহারাষ্ট্র। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যটিতে সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৩,৭৫২ জন। যা এই রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণে রেকর্ড। বর্তমানে মহারাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ২০ হাজার পেরিয়ে গিয়েছে। মারণ ভাইরাস প্রাণ কেড়েছে ৫,৭৫১ জনের। মহারাষ্ট্রের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা মুম্বইয়ের বাণিজ্য নগরীতে সংক্রমমের শিকার ৬২ হাজারের বেশি। যদিও এরমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩১,৮৫৬ জন। মুম্বইতে এখনো পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩,৩০৯ জনের। 

আরও পড়ুন: লাদাখ নিয়ে আজ মোদীর সর্বদল বৈঠক, উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে থাকছেন মমতাও

করোনা সংক্রমণে দ্বিতীয় স্থানে থাকা তামিলনাড়ুতে আক্রান্তের সংখ্যা ৫২ হাজার পেরিয়েছে। জাতীয় রাজধানীতে কোভিড ১৯ রোগের শিকার ৪৯ হাজারের বেশি মানুষ। আর প্রধানমন্ত্রীর রাজ্য গুজরাতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৫,৬০১। তবে মহারাষ্ট্রে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬০,৮৩৮ জন। তামিলনাড়ুতে সংখ্যা ২৮,৬৪১ এবং দিল্লিতে ২১,৩৪১।

তবে সুস্থতার হারে দেশের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে রাজস্থান। এই রাজ্যে সুস্থতার হার ৭৭.৫ শতাংশ। এর পরেই রয়েছে মধ্যপ্রদেশ। এই রাজ্যে সুস্থতার হার ৭৫.৫ শতাংশ।