শত্রুর বুকে ভয় ধরিয়ে আরও একবার সাফল্য পেল ভারত। শুক্রবার ওড়িশার বালাসোরে সফল উৎক্ষেপণ হয় কুইক রিয়াকশান সারফেস টু এয়ার মিসাইলের। ক্ষেপণাস্ত্রটি পরীক্ষার সময় সরাসরি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করতে সক্ষম হয়। এদিন বেলা ৩টে ৫০ মিনিটে আইটিআই চাঁদিপুরে ক্ষেপণাস্ত্র সিস্টেমটি পরীক্ষা করে দেখা হয়। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের বিবৃতিতে হয়েছে ক্ষেপণাস্ত্রটি একটি একক পর্যায়ের সলিড প্রোপেলান্ট রকেট মোটরের মাধ্যমে চালানো যায়। আর এটি দেশীয় সমস্ত সাবসিস্টেমে ব্যবহার করা হয়। পাশাপাশি জানান হয়েছে সিস্টেমটি ৬টি ক্ষেপনাস্ত্র বহন করতে সক্ষম। 


ব্যাটারি মাল্টি ফাংশন ব়়্যাডার, ব্যাটারি নজরদারি ব়্যাডার, ব্যাটারি কমান্ড পোস্ট ভিইকেলস এবং লঞ্চারের মত সমস্ত কিউআরএসএএম অস্ত্র সিস্টেমটিটে ব্যবহার করা হয়েছিল পরীক্ষার সময়। পাশাপাশি দেখা হয়েছে। সিস্টেমটির লক্ষ্যবস্তুকে আঘাতকে কতটা সক্ষম। এই সিস্টেমের মাধ্যমে মাটি থেকে আকাশে ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়া সম্ভব হবে। লঞ্চারটি তৈরির মূল উদ্দেশ্য ছিল মাটি থেকে প্রতিপক্ষের যুদ্ধবিমানে আঘাত করা। ডিফেন্স রিসার্চ ডেভলপমেন্ট অর্গানাইজেশনের উদ্যোগে মূলত এটি পরীক্ষা করা হয়েছিল। পরীক্ষার সময় অংশ নিয়েছিল সংস্থাটির ল্যাব, আরসিআই, এলআরডিই। 

কিইক রেসপন্স সারফেস টু এয়ার মিসাইলের সফল পরীক্ষার জন্য কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। পূর্ব লাদাখ সেক্টর ও জম্মু ও কাশ্মীরের পাকিস্তান আর চিনের সঙ্গে চলমান বিবাদের কারণে কিইক রেসপন্স সারফেস টু এয়ার মিসাইলের সফল উৎক্ষেপণ ভারতীয় সেনা জওয়ানদের মনোবল আরও বাড়িয়ে দেবে বলেই মনে করেছেন সমর বিশেষজ্ঞরা। পরপর বেশ কয়েকটি পরীক্ষা সাফল্য পেল ভারত। এদিনও পাক সেনা সংঘর্ষ বিরতি লঙ্ঘন করায় ভারতীয় জওয়ানরা উপযুক্ত জবাব দিয়ে পাক বাহিনীর সেনা বাঙ্কার উড়িয়ে দিয়েছে।