করোনার উপসর্গ রয়েছে এমনি এক আইরিশ মহিলাকে ভর্তি করা হয়েছিল ওড়িশার কটক শহরের এক সরকারি হাসপাতালে। আইসোলেশন ওয়ার্ডে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল তাঁকে। সেখান অবশ্য মনে টেকেনি বেদিশিনীর। সুযোগ বুঝেই পালিয়েছিলেন হাসপাতাল থেকে। অবশেষে আইরিশ ওই মহিলার সন্ধান পয়েছে পুলিশ। ওড়িশার রাজধানী ভুবনেশ্বরের এক হোটেল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে তাঁকে।

আরও পড়ুন: ভালবাসার কাছে হেরে গেল করোনা, আইসোলেশন ওয়ার্ডও বিচ্ছেদ ঘটাতে পারল না বৃদ্ধ দম্পতির

সর্দি-জ্বরে ভুগছেন ওই বিদেশী মহিলা। বৃহস্পতিবার ভুবনেশ্বরের বিজু পট্টনায়েক আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মেডিক্যাল স্ক্রিনিং-এর পর আটকানো হয় তাঁকে। এর পরেই ওই মহিলাকে কটকের এসসিবি মেডিক্যাল কলেজ এবং হাসপাতালে পাঠান হয়। সঙ্গে ছিলেন তাঁর এক সঙ্গীও। কী ভাবে ওই মহিলা হাসপাতালের নিরাপত্তার বেড়াজাল ডিঙিয়ে পালালেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। জানা গেছে এসসিবি মেডিক্যাল কলেজের পাঁচতলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের জন্য আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরি করা হয়েছে। মহিলার সঙ্গী  চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলার সুযোগে চম্পট দেন ওই আইরিশ মহিলা।

আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্কে কাঁপছে বাংলা, এবার বন্ধ হল ভারত-বাংলাদেশ 'জয়েন্ট রিট্রিট'

ভারতে শুক্রবার  পর্যন্ত ৩১ জনের শরীরে মারণ করোনা ভাইরাস পাওয়া গিয়েছিল। এদের মধ্যে অবশ্য ১৬ জন বিদেশি নাগরকি। ইতালি থেকে রাজস্থানে ঘুরতে এসেছিলেন তারা। বাকি ১৫ জন ভারতীয় নাগরিক। শনিবার নতুন করে আরও ৩ জনের শরীরে কোভিড-১৯ ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক।  এদের মধ্যে ২ জন লাদাখের বাসিন্দা ও ১ জন তামিলনাড়ুর। ফলে  শনিবার ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল ৩৪।  এদিকে গত বৃহস্পতিবার সংসদে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন জানিয়েছেন করোনা আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা এবং সংক্রমণের লক্ষণ দেখা যাওয়া ২৮,৫২৯ জন ব্যক্তিকে কমিউনিটি সারভিলেন্সে রাখা হয়েছে।